মসজিদের মুয়াজ্জিন থেকে যেভাবে সিনেমার ভিলেন হলেন ডন

চলচ্চিত্রের মন্দলোক হিসেবে পরিচিত আশরাফুল হক ডন। দর্শকরা যাকে খলনায়ক ডন হিসেবেই চেনেন। অথচ এই চলচ্চিত্রে খলনায়ক হওয়ার আগে ম’সজিদে আযান দিতেন তিনি। ম’সজিদের মুয়াজ্জিনের ভুমিকা পা’লন ক’রতেন। ডন নিজেই জা’নালেন এ তথ্য।

সিনেমায় যে ডনকে সবাই চিনেন বাস্তবের ডন আ’সলে একবারেই আ’লাদা। খুবই আড্ডা প্রিয়। যার মধ্যে সিনেমা’র অ’ভিনেতার কোন বালাই নেই। অ’ভিনেতার বাইরে আমি একজন সাধারণ মানুষ। সিনেমা শুরুর আগে এলাকার ম’সজিদে নিয়মিত আজান দিতাম আমি। বলেতে পারেন মুয়াজ্জিন ছিলাম আমি। নামাজই নিয়মিত পড়তাম।

বগুড়ায় জ’ন্ম ডনের। বাবা প্রয়াত হলেও মা বসবাস করছেন আ’মেরিকায়। দশ ভাই বোনের মধ্যে সবার ছোট ডন। ১৯৭১ সালে জ’ন্ম নেয়া ডন বগুড়া ছে’ড়ে ঢাকায় আসার পরই পরিচিত হয় পরিচালক সোহানুর রহমান সোহানের স’ঙ্গে ।

তিনিই প্রথম তাকে চলচ্চিত্রে সুযোগ দেন। ছবির নাম ‘লাভ’। কিন্তু ডনের প্রথম মু’ক্তিপ্রাপ্ত ছবি ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’। তখন থেকেই চলচ্চিত্র তার ধ্যান-জ্ঞান হয়ে যায়।

‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবিতে অ’ভিনয়ের সুবাধেই পরিচিত হয় প্রয়াত নায়ক সালমান শাহর স’ঙ্গে । শুরু হয় তাদের ব’ন্ধুত্বও। চলচ্চিত্র ইন্ডাষ্ট্রিতে ডন সালমান শাহর সবচেয়ে কাছের ব’ন্ধু্টিই ছিলেন। ডনের স’ঙ্গে গল্প নিয়ে বসলে কোন না কোনভাবে সেখানে সালমান শাহকে নিয়ে স্মৃ’তি রোমন্থন করবেনই তিনি।

সালমান শাহ অ’ভিনীত ২৭টি ছবির মধ্যে ২৪ টিতেই খলনায়কের চরিত্রে অ’ভিনয় করেন ডন। তার অ’ভিনীত হিট ছবির তালিকায় রয়েছে ‘এ জীবন তোমা’র আমা’র, বি’ক্ষোভ, ভালোবাসার মূল্য কত, তোমাকে চাই, ফুলের মতো বউ, বিয়ের ফুল, জীবন সংসার, ভালোবাসা কারে কয়, মহামি’লন, মি’লন হবে কত দিনে‘র মতো ছবি।

ডন অ’ভিনীত ছবির সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৬শ’ । চলচ্চিত্র ছাড়াও বেশ কয়েকটি টিভি নাট’কেও অ’ভিনয় করেন তিনি। কৌশিক হোসেন তাপস পরিচালিত ‘কত ভালোবাসি তোমাকে’ টেলিফিল্মে নায়িকা জনার বিপরীতে নায়কও চিলেন তিনি। অ’ভিনয়ের পাশাপাশি ‘এক জনমের ভালোবাসা’ নামে একটি চলচ্চিত্রও প্রযোজনা করেন।

গড়ে তুলেছেন ব্যান্ড দল ‘আর্কাইভ’। জ’ড়িত আছেন নানা রকম সামাজিক ক’র্মকা’ণ্ডে। এক সময় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদকের দায়িত্বও পা’লন করেন তিনি। সূত্র: সমকাল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *