এনামুলের ‘হুংকারে’ মাতোয়ারা কোটি কোটি ‘সৈনিক’

একবার তিনি ফেসবুকে লিখেছিলেন ‘আয়মান সাদিকের ফাঁসি চাই’। এরপর সেখানে প্রশ্ন আসে, ‘কেন আয়মান সাদিকের ফাঁসি চান আপনি?’ এরপর তিনি পালটা উত্তর দেন, ‘সবাই ফাঁসি চাচ্ছে তাই আমিও চেয়েছি।’ এমন কথোপকথনের পরই তার জীবনের অনেককিছু পালটে যায়। কিছুই আর আগের মত থাকে না। ওই কথোপকথন ভাইরাল হওয়ার পর তার স্ত্রী বাপের বাড়ি চলে যান। এদিকে সেওও লাইভে এসে কান্নাকাটি করে। কিন্তু এই কান্নার পরে তিনি সমবেদনা নয় বরং ট্রোলড হয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়াজুড়ে। এরপরে হয়েছেন ভাইরাল। সামলে উঠে ছেলেটিই আবার ধরেছে নতুন বেশ, তা হলো- সিংহের হুংকার দেওয়া!

আলোচিত এই ছেলেটির নাম এইচ এম এনামুল হক। সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড হবার পর স্ত্রী চলে গেলেও সেই স্ত্রী এনামুলের কাছে আবার ফিরেও এসেছেন। তবে এর মধ্য দিয়ে তিনি ভাইরাল হয়েছেন বেশ ভালো করেই। তিনি যা বলেন সেটাই ভাইরাল হয়ে যায়।

এনামুল প্রায়ই লাইভ করেন ফেসবুকে। এই লাইভগুলোতে বিভিন্ন জায়গার ফেসবুক ব্যবহারকারীরা নানা ধরণের ‘উল্টোপাল্টা’ মন্তব্য করেন। এনামুল সেইসব কমেন্টের ভিন্নরকম উত্তর দেন। তার ভাষায় এগুলো ‘হুংকার’। যারা তার সঙ্গে সাড়া দেন তাদেরকে তিনি ‘সৈনিক’ বলেন। এনামুলের ভাষায়, তার লক্ষ লক্ষ ‘সৈনিক’ ও ‘সৈনিকা’ আছেন।

এনামুলের ভাষায় তিনি সিংহ নন, সিংহেরও ঊর্ধ্বে। তিনি গর্জন আর হুংকার দেন। তার হুংকার শুনে যারা অশ্লীল কমেন্ট করেন তারা পালাবে এমনটা এনামুলের আশাবাদ।

এনামুল বিভিন্ন সময় ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গকেও হুংকার দিয়ে বসেন। তার নামে এনামুলিয়ান গর্জন নামে একটি গ্রুপ রয়েছে ফেসবুকে যেখানে ১ লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ আছেন।

১৬ সেপ্টেম্বর বিবাহবার্ষিকী ছিল এনামুলের। তিনি এই উপলক্ষে তার পেইজে লিখেছেন, ‘এইদিনেই কোটি ভক্তের বুকে আঘাত দিয়ে তোমার দু’হাত ধরেছিলাম’। জানা যায়, স্ত্রী সাবরিনাকে নিয়ে এনামুল থাকেন সাভারে। এনামুল গণমাধ্যমকে জানান, আমি স্ত্রীকে খুবই ভালোবাসি। সাময়িকভাবে আমার স্ত্রী আমাকে ছেড়ে চলে গেছিল, পরে ফিরে এসেছে।

এনামুলের বাবা মা থাকেন হালুয়াঘাটে। তারা তাদের ছেলের ভাইরাল হবার বিষয়টি জেনেছেন। এনামুলের ভাষ্য স্থানীয় ‘ছেলেপেলেরা’ তার মা বাবাকে তার ভিডিও দেখিয়েছে। এনামুলকে তার বাবা মা নিরুৎসাহিত করেছিলেন এই বিষয়ে। তবে এনামুল আনতে চান ‘পরিবর্তন’। তিনি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে অশ্লীলতা দূর করার মিশনে নেমেছেন বলে দাবি করেন। এনামুল গণমাধ্যমকে বলেন, এ বিষয়ে আরো জানতে চাইলে আমার লাইভে আসবেন। আমার সৈনিক সংখ্যা কোটি কোটি, সৈনিকাও রয়েছে অনেকে। আমাকে অনুসরণকারীরাই হলো আমার সৈনিক, সৈনিকা।’

এনামুল গণমাধ্যমকে আরো জানান, যে আয়মান সাদিকের স্ক্রিনশট নিয়ে তিনি ভাইরাল হয়েছেন, সেই আয়মান এখন তার সৈনিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *