বাছুর জালা খাওয়ায় ঢাবি ছাত্রীর মাথা ফাটাল প্রতিবেশী, মাথায় সেলাই

বাছুর ধানের জালা খাওয়ায় প্রতিবেশীদের দ্বারা রক্তাক্ত জখম হয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী । বুধবার(১৬ সেপ্টেম্বর) দুপুর দেড়টার দিকে নেত্রকোনার কলমাকান্দা উপজেলায় পোগলা ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটেছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলের আবাসিক ও বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী আহত কেয়া আক্তার কাকলি (২২) আতকাপাড়া গ্রামের মৃত আবু শ্যামার মেয়ে। করোনা পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় কাকলী নিজ বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

তার ওপর হামলার ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন পার্শ্ববর্তী গোমাই বাজার এলাকার আব্দুল রাজ্জাক রাজুর দুই ছেলে আপেল মিয়া (২২), লাল চান মিয়া (২৮) এবং তাদের মা।

এ ঘটনার পরে বিকেলেই লাল চান মিয়াকে আটক করার তথ্য নিশ্চিত করেন কলমাকান্দার উপপরিদর্শক (এসআই) শহিদুল ইসলাম।

কেয়া আক্তার কাকলী জানান, পার্শ্ববর্তী গোমাই বাজার এলাকার অভিযুক্ত আপেল, লালচান ও তার মা আমাদের এক মাস বয়সী গরুর বাছুরটিকে মেরে অশ্লীল ভাষায় গালি দিতে দিতে বাড়িতে আসেন। আমি তাদের বলি এক মাসের বাছুর দুধ ছাড়া ধানের জালা খায় না। যদি ক্ষতি করে থাকে ক্ষতিপূরণ দিয়ে দেব। গালাগালি করেন কেন। এ কথা বলতেই আপেলের মা আমার হাত ধরে আর আপেল বাঁশ দিয়ে মাথায় আঘাত করে। এতে আমার মাথা ফেটে থেকে রক্ত বের হতে থাকে। আর কালাচান আমার মাকে মারধর করে। রক্তাক্ত অবস্থায় কয়েকজন আমাকে উদ্ধার করে প্রচণ্ড বৃষ্টির মধ্যে হাসপাতালে নিয়ে আসে। আমার মাথায় দু’টি সেলাই দেওয়া হয়েছে।

কলমাকান্দা হাসপাতালে কর্তব্যরত চিকিৎসক সোরাব হোসাইন লিংকন জানান, ‘কেয়াকে নিয়ে হাসপাতালে আসলে তার মাথায় দু’টি সেলাই দেওয়া ও ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসা চলছে ও রোগী অবস্থা এখন শঙ্কামুক্ত।’

এ ব্যাপারে কলমাকান্দা ওসি মো. মাজাহারুল করিম জানান, ‘ঘটনার পরপরই বিকেলে লাল চানকে আটক করা হয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফখরুজ্জামান স্যারসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন’।

মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *