আবরার মামলার বিচার শুরু, আসামীদের বিরুদ্ধে যে তিনটি অভিযোগ

বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের মামলায় ২৫ আসামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে দিয়ে মঙ্গলবার থেকে এই মামলার বিচার শুরু হল।

আলোচিত এই হত্যাকাণ্ডের মামলার এজাহারে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতাসহ প্রথমে ১৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছিল, তবে তদন্তের পরে আসামীর সংখ্যা ২৫ জন করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, আসামীদের বিরুদ্ধে মোট তিনটি অভিযোগ আনা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে, ৩০২ ধারায় নরহত্যা, ৩০২ এর ৩৪ ধারা অনুযায়ী হত্যার পূর্ব-পরিকল্পনা এবং ১০৯ ও১১৪ ধারায় হত্যায় অংশগ্রহণের অভিযোগ গঠন করা হয়েছে।

হত্যার আগে আসামীরা পরিকল্পনা করেছিল যে তারা আবরারকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে এবং মারবে, এক আসামী উদ্বুদ্ধ করেছিল, উদ্বুদ্ধ করার পর তারা সম্মিলিত হয়েছিল, পরে আবরার বাড়ি থেকে আসলে তাকে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়, তার মোবাইল চেক করা হয় এবং এক পর্যায়ে তাকে মারধর করা হয়। বিবিসিকে বলেন মোশারফ হোসেন কাজল।

“এই মামলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল চার্জ গঠন করা। গত দুই দিন চার্জ শুনানি হয়েছে। ২২ জন আসামী শুনানি করেছেন। পলাতক ৩ জনের পক্ষে রাষ্ট্র আইনজীবী নিয়োগ দেয়া হয়েছে। শুনানি শেষে আজ চার্জ গঠন করা হলো।”

ঢাকার দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশ দেন।

আগামী ২০ সেপ্টেম্বর থেকে বিচারের সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হবে। আগামী পহেলা অক্টোবর পর্যন্ত সবগুলো কার্যদিবসে একটানা সাক্ষ্যগ্রহণ চলবে।

এদিকে আসামী পক্ষের আইনজীবী ফারুক আহাম্মেদ বলেন, তদন্তকারী কর্মকর্তা চার্জশিটে যেসব ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছিল সেগুলোই রাখা হয়েছে।

আদালতের কাছে এই মামলায় সময় চেয়ে আবেদন করা হলেও তা খারিজ করে দেয়া হয়।

তিনি বলেন, চার্জশিটে ঘটনার তারিখ ৬ অক্টোবর ২০১৯ থেকে৭ অক্টোবর উল্লেখ করা হলেও অভিযোগপত্রে এই ঘটনার তারিখ ৪ অক্টোবর ২০১৯ থেকে ধরা হয়েছে। এর ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে যে ওই দুই দিন এই হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

মামলার এজাহারে এই তারিখের উল্লেখ না থাকায় তারা উচ্চ আদালতে এর একটি ফৌজদারি রিভিশন মামলা দায়ের করবেন বলে জানান মি. আহাম্মেদ।

তিনি অভিযোগ করেন, মিডিয়াতে ব্যাপক হারে প্রচার হওয়ার কারণে আবরার হত্যা মামলা দ্রুততর করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে।

২০১৯ সালের ৭ই অক্টোবর ভোররাতে আবরার ফাহাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয় বুয়েটের শেরে বাংলা হল থেকে। এর পরপরই ঢাকায় অবস্থিত বাংলাদেশের এই প্রধান প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিচারের দাবিতে আন্দোলনে নামে।

আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় সব মিলিয়ে ২৫ জনকে অভিযুক্ত করে ২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর চার্জশিট তৈরি করে ঢাকার গোয়েন্দা পুলিশ।

আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ব্যাপক ছাত্র বিক্ষোভ হয়। এই হত্যাকাণ্ডের বিচারের দাবিতে সমাজের নানা শ্রেণী-পেশার মানুষও সোচ্চার হয়েছে।

সে প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েট কর্তৃপক্ষ ক্যাম্পাসে সব ধরনের রাজনৈতিক সংগঠন এবং ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *