ওয়ার্ড বয়ের অবহেলায় ৬ বছরের নাতি ঠেললো দাদুর স্ট্রেচার, চাকরি গেল ওয়ার্ডবয়ের

মায়ের সঙ্গেই অ’সুস্থ দাদুর স্ট্রেচার ঠেলে নিয়ে যাচ্ছে মাত্র ছ-বছরের নাতি! হাসপাতা’লের এক ওয়ার্ড থেকে অন্য ওয়ার্ডে। স্ট্রেচারের একপ্রান্তে মা। অন্য প্রান্তে তাঁর একরত্তি ছে’লে। মা একপ্রান্ত ধরে টানছেন। মায়ের একা ক’ষ্ট হবে, তাই ছোট্ট ছে’লেটিও স্ট্রেচার ঠেলছে। কেউ একজন স্মা’র্টফোনে সেই ভিডিয়ো তুলে, ছেড়ে দিয়েছিল সোশ্যাল প্ল্যাটফর্মে। অবিশ্বা’স্য এ ভিডিয়ো নেটপাড়ায় ভাই’রাল হতে সময় লাগেনি! নজর এড়ায়নি যোগী প্রশাসনেরও।

মাত্র আট সেকেন্ডের ভাই’রাল ভিডিয়োর জেরে সা’সপেন্ড করা হয়েছে সংশ্লিষ্ট হাসপাতা’লের অ’ভিযু’ক্ত ওয়ার্ড বয়কে। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের দেওরিয়া জে’লা হাসপাতা’লে।জানা যায়, নেটপাড়ায় কয়েক সেকেন্ডের ভিডিয়ো ক্লিপিংসটি ছড়িয়ে পড়ার পরেই, দেওরিয়া জে’লা হাসপাতা’লে হাজির হন খোদ জে’লা’শাসক।ভিডিয়োর সত্যতা খতিয়ে দেখতে হাসপাতল কর্তৃপক্ষকে ঘটনার ত’দন্তের নির্দেশ দেন।

তার পরেই জে’লা’শাসকের নির্দেশে সা’সপেন্ড করা হয় অ’ভিযু’ক্ত ওয়ার্ড বয়কে।জানা গিয়েছে, হাসপাতা’লের সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে কর্তব্যরত ওই ওয়ার্ড বয়। অ’ভিযোগ, প্রতিটি ট্রিপের পরিষেবা দিতে ৩০ টাকা করে দাবি করেছিলেন ওই ওয়ার্ড বয়। আর্থিক সাম’র্থ্যে না-কুলনোয় মহিলা নিজেই একরত্তি ছে’লেকে সঙ্গে নিয়ে, অ’সুস্থ বাবাকে স্ট্রেচারে করে এক ওয়ার্ড থেকে আর এক ওয়ার্ডে নিয়ে যান।হা’সপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, দেওরিয়ার গৌরা গ্রামের চেদি যাদব দু-দিন আগেই হাসপাতা’লের সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে ভর্তি হন।

তিনি পড়ে গিয়ে গু’রুতর চোট পেয়েছেন। চেদি যাদবের স্ত্রী’ পার্বতী দেবী আগের দিন সারাক্ষণ হাসপাতা’লে ছিলেন। পরদিন ওই বৃ’দ্ধের কাছে ছিলেন মে’য়ে বিন্দু ও একরত্তি নাতি।বিন্দু সাংবাদিকদের জানান, ওই ওয়ার্ড বয় প্রত্যেক বার স্ট্রেচার করে বাবাকে নিয়ে যাওয়ার সময় ৩০ টাকা করে দাবি করছিলেন। সে কারণেই টাকা দিতে আ’পত্তি করি। তাতেই বেঁকে বসেন ওই হাসপাতাল স্টাফ। মুখের উপর বলে দেন, টাকা না দিলে, স্ট্রেচারে করে তিনি নিয়ে যাবেন না। অগত্যা, ছে’লে শি’বমকে সঙ্গে নিয়েই আমি স্ট্রেচার ঠেলেছি।

জানা গিয়েছে, দেওরিয়ার জে’লা’শাসক অমিত কি’শোর সোমবার হাসপাতা’লে হাজির হন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলার পাশাপাশি চেদি যাদবের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলেন। এর পরেই সদর এসডিএম ও হাসপাতা’লের অ্যাসিস্ট্যান্ট চিফ মেডিক্যাল অফিসারের সমন্বয়ে একটি টিম তৈরি করে, ত’দন্তের নির্দেশ দেন। যত দ্রুত সম্ভব এই টিমকে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ভাই’রাল ভিডিয়ো প্রসঙ্গে জে’লা’শাসক বলেন, খোঁজখবর নিয়ে জানা গিয়েছে, ভিডিয়োটি দু-দিন আগে তোলা। চেদি যাদব জে’লা হাসপাতা’লের সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছেন। এই ঘটনায় ওয়ার্ড বয় কালপ্রিট। চিফ মেডিক্যাল অফিসার ইতিমধ্যে ওই ওয়ার্ড বয়কে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছেন। ঘটনার ত’দন্ত রিপোর্ট হাতে আসার পরেই পরবর্তী শা’স্তিমূলক পদক্ষেপ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *