ভারতে ‘ইতিহাস’ লিখলেন করোনাজয়ী বাংলাদেশি মা-ছেলে

প্রাণপ্রিয় ছেলেকে কিডনি দিয়ে বাঁচাতে বাংলাদেশ থেকে ভারতে গিয়েছিলেন কল্পনা। এই কিডনি প্রতিস্থাপন করতে গিয়ে মা-ছেলে দুজনই মহামারি করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। অবশেষে সব শঙ্কা কাটিয়ে তারা জয় করলেন করোনা। ভারতে মা-ছেলে লিখলেন মমতা আর লড়াইয়ের ‘ইতিহাস’।ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া এবং এনডিটিভি জানিয়েছে, করোনা আসার পরে ভারতের চিকিৎসা ব্যবস্থায় এমন ঘটনা এটাই প্রথম।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত জানুয়ারিতে ছেলেকে নিয়ে ভারতে যান কল্পনা। তখন করোনার এমন তাণ্ডব ভারতে ছিল না। তাদের আর্থিক কারণ এবং উত্তমের শারীরিক জটিলতায় চিকিৎসা শুরু করতে কিছুটা দেরি হয়। এর মাঝে চলে আসে মহামারি। ভারতে শুরু হয় লকডাউন। এরইমধ্যে মা-ছেলে দুজনেই করোনায় আক্রান্ত হন!

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ সব দেশের গবেষকদের মতে, কিডনির জটিলতা থাকলে করোনা রোগীদের বাঁচার সম্ভাবনা কমে যায়। উত্তমের ক্ষেত্রেও চিকিৎসকেরা এই শঙ্কায় ছিলেন। কোনো ধরনের জটিলতা ছাড়াই গত ৩ জুলাই কলকাতায় উত্তমের কিডনি প্রতিস্থাপন করা হয়। এ ঘটনায় ভারতের চিকিৎসকেরাও অবাক হয়েছেন।

এদিকে চিকিৎসকেরা অবাক হলেও মা কল্পনা ঘোষ জানতেন ছেলে তার সুস্থ হবেই। এনডিটিভির সাংবাদিকের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ছেলের জন্য তিনি অথৈ নদীতে ঝাঁপ দিতেও দ্বিধা করেননি।

উত্তমের চিকিৎসা করা ডা. দীপক শঙ্কর রায় বলেন, করোনাজয়ীদের মধ্যে এমন ঘটনা ভারতে এটিই সম্ভবত প্রথম। মহামারিতেও যে আমরা হারছি না, এটি তার প্রমাণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *