আইসিএল কাণ্ডে আশরাফুলকে নিয়ে বোমা ফাটালেন শাহরিয়ার নাফিস

বাংলাদেশের ক্রিকেটের অন্যতম একটি আলোচিত ঘটনা ২০০৮ সালের অনুনুমোদিত ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লিগ আইসিএল। যেখানে খেলতে গিয়ে আজীবন নিষিদ্ধ হয়েছিলেন ১৩ ক্রিকেটার। যদিও পরবর্তীতে ক্ষমা চেয়ে অনেকেই পার পেয়ে গিয়েছিলেন।

এই ঘটনার মুল হোতা হিসেবে অনেকেই আশরাফুলকে দায়ী করে থাকেন। যদিও কয়েকদিন আগে সাবেক এই অধিনায়ক গণমাধ্যমে জানিয়েছিলেন, ১৫ কোটির প্রস্তাব পেয়েও তিন সেই সময় আইসিএল খেলতে যাননি। তবে আশরাফুল না গেলেও দেশের বিদ্রোহী দল ঢাকা ওয়ারিয়র্সে খেলতে যাওয়া শাহরিয়ার নাফিস সেই ঘটনার সাথে আশরাফুলের সম্পৃক্ততা নিয়ে কথা বলেছেন।

নিজের ফেইসবুক পেজে, ‘আইসিএল-দ্য আনটলড ট্রুথ’ নামক শিরোনামে প্রথম এপিসোডের ভিডিওতে সেই ঘটনার শুরুর দিকের বর্ণণা দিয়েছেন শাহরিয়ার নাফিস।
তিনি জানিয়েছেন, আইসিএলের কথা তিনি প্রথমে শোনেন মোহাম্মদ আশরাফুলের কাছ থেকে। পরে যদিও সেখান থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন বাংলাদেশের সাবেক এই অধিনায়ক।

নাফিসের ভাষ্যে, ‘ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লিগে (আইসিএল) যখন আমি যোগ দেই ২০০৮ সালে, এটা তার আগের বছরই ভারতে শুরু হয়েছিল। পত্র পত্রিকাতে কিছুটা পড়েছিলাম। টিভির পর্দায়ও কিছু খেলা দেখেছিলাম। আমরা সম্ভবত পাকিস্তানে এশিয়া কাপ বা দ্বিপাক্ষিক সিরিজের জন্য অনুশীলন করছিলাম। ওই সময় বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুল আমার ভালো বন্ধু, ও এসে আমাকে বললো, “দোস্ত, তোর কাছে যদি প্রস্তাব আসে বিদেশে টি-টোয়েন্টি লিগ খেলার ব্যাপারে তুই কি করবি?’

‘প্রশ্নটা শুনে আমি একটু অবাকই হয়েছিলাম। কিছুক্ষণ চিন্তা করে আমি বলেছিলাম এরকম যদি কোনো প্রস্তাব আসে তাহলে আমি বিবেচনা করবো না। কারণ আমি এই ব্যাপারে কিছু ভাবছি না। এই এসব নিয়ে চিন্তাই করতে চাই না। তবে এর পরের দুই-তিন মাসের ঘটনা প্রবাহ ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লিগের ব্যাপারে চিন্তা ভাবনা করতে প্রবাহিত করে।’

ভারতের আইসিএল থেকে শুরু করে বাংলাদেশের বিপিএল পর্যন্ত সব বড় বড় টুর্নামেন্টের সঙ্গেই নাম জড়িয়ে আছে কৌস্তভ লাহিড়ীর। তার প্রস্তাব পেয়েই বাংলাদেশের ১৪ ক্রিকেটার সে সময় বোর্ডের সঙ্গে বিদ্রোহ করে। নাম কৌস্তভ লাহিড়ী হলেও কাস্টি লাহিড়ী নামেই বেশি পরিচিত ছিলেন তিনি। আইসিএলে বাংলাদেশের দল ঢাকা ওয়ারিয়র্সের ম্যানেজার এই ভারতীয় বাঙালী, একই সঙ্গে খেলোয়াড়দের এজেন্টও। বাংলাদেশ থেকে ক্রিকেটার ‘ভাগিয়ে’ নেওয়ার কাজটা লাহিড়ীই করেছিলেন।

নাফিসের ভাষ্য, ‘ঢাকা ওয়ারিয়র্স দলটি সম্পূর্ণ ভাবে কোস্তব লাহিড়ী গুছিয়েছিলেন এবং তিনি প্রত্যেকটি খেলোয়াড়ের সঙ্গে ব্যক্তিগত ভাবে যোগাযোগ করেছিলেন। তিনিই খেলোয়াড় বাছাই করে দল গুছিয়েছিলেন। এই রিউমারটা আংশিক সত্য।গুঞ্জন আছে আশরাফুল আইসিএলের জন্য একটি দল গঠন করেছিলেন। যদিও পরবর্তী সেই দল যায়নি। এ ব্যাপারে নাফিস বলেন, ‘ইন্ডিয়ান ক্রিকেট লিগের (আইসিএল) প্রথম প্রস্তাব আশরাফুলের কাছে এসেছিলো। উনি তখন বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন এবং বাংলাদেশের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ছিলেন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *