সরকারি হাসপাতালে অক্সিজেন পেতেও টাকা দিতে হয় নার্স ওয়ার্ডবয়দের

বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে রোগী ও স্বজনদের সাথে অহরহ দুর্ব্যবহারের অভিযোগ পাওয়া গেছে কর্তব্যরতদের বিরুদ্ধে। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছে সুশীল সমাজ।

চট্টগ্রাম নগরীর কাউনিয়া এলাকার শাকিল আর নাজির মহল্লার শাহিন। আক্রান্ত হয়ে প্রথমজন ১৩ দিন আর দ্বিতীয়জন ৫ দিন ছিলেন শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে। চিকিৎসাকালে দু’জনই চিকিৎসা সংক্রান্ত সহযোগিতা চাইতে গিয়ে ডাক্তার, নার্স এবং ওয়ার্ড বয়দের দুর্ব্যবহারের শিকার হয়েছেন। টাকা না দিলে অক্সিজেন দেন না ওয়ার্ডবয়রা। নার্স এবং ওয়ার্ডবয়দের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগই বেশি।

ভুক্তভোগী নারী তাসনিম রহমান বলেন, ‘চোখের সামনে অক্সিজেনের অভাবে আমার স্বামী ছটফট করছিল। অনেকে বলছে, টাকা দেন তাইলে পাবেন। যতক্ষণ আমি টাকা না দিছি অক্সিজেন পাইনি। পরে আমার টাকা দিয়ে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিতে হয়েছে।’

শাকিল আহম্মেদ নামে একজন বলেন, ‘যতটুকু সেবা পাওয়ার কথা তা পাইনি, পেয়েছি দুর্ব্যবহার।’

অভিযোগগুলো তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ বলে মনে করে সুশীল সমাজ।

বরিশাল সচেতন নাগরিক কমিটির সভাপতি অধ্যাপক শাহ সাজেদা বলেন, ‘রোগী ও তার স্বজনের সাথে খারাপ ব্যবহার করাটা কাম্য নয়। বিষয়টির তদন্ত হওয়া দরকার এবং আমরা এর বিচার দাবি করছি।’

সেবার কাজটি আন্তরিকভাবে করতে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার আশ্বাস দেন বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. বাকির হোসেন।

করোনা ওয়ার্ডে তিন শিফটে ১১ জন ডাক্তার, ৩০ জন নার্স এবং ৯ জন ওয়ার্ডবয় কর্মরত থাকেন। বৃহস্পতিবার (০৯ জুলাই) পর্যন্ত করোনা ওয়ার্ডে মোট চিকিৎসা নিয়েছেন ৮২৪ জন। এর মধ্যে সুস্থ ও রেফার্ড হয়েছেন ৫৯৬ জন। আর মারা গেছেন ১২১ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *