জার্মানিতে করোনা পরিস্থিতির যে উন্নতিটা চোখে পড়ার মতো

জার্মানিতে আগামী ১৫ জুন থেকে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশগুলোর জন্য সীমান্তে কড়াকড়ি শিথিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মার্কেল সরকার। তবে নতুন করে বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যের স্কুল এবং উপাসনালয়ে সংক্রমণ ছড়ানোয় উদ্বিগ্ন স্থানীয়সহ প্রবাসীরা।

চিকিৎসা সেবা, স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মানা এবং জনসাধারণের সর্বোচ্চ সচেতনতায় জার্মানির করোনা পরিস্থিতির উন্নতি চোখে পড়ার মতো। সেই সঙ্গে চলমান অর্থনৈতিক সংকটের কথা বিবেচনা করে আগামী ১৫ জুন থেকে ইইউ সদস্যভুক্ত রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে মিল রেখে জার্মান সীমান্তে কড়াকড়ি শিথিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে মার্কেল প্রশাসন। সেই সাথে ১৩ জুন থেকে শারিরীক দূরত্বের যে বিধি নিষেধ সেটিও শিথিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তুইরিঙ্গের রাজ্য সরকার।

একজন বলেন, করোনার সংক্রমণ অন্য প্রদেশগুলোর তুলনায় এখানে কম। তাই রাজ্য সরকার সঠিক সিদ্ধান্তই নিয়েছে বলে মনে করছি।

এদিকে দীর্ঘ কয়েক মাসের লকডাউনের পর বার্লিনসহ কয়েকটি শহরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও উপাসনালয়গুলোয় পুনরায় কোভিড নাইন্টিন ছড়িয়ে পড়ায় চিন্তায় পড়েছেন স্থানীয়সহ প্রবাসী অভিভাবকরা।

প্রবাসী বাঙালি একজন বলেন, হঠাৎ করে সক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। অনেকেই নতুন করে শঙ্কিত হয়ে পড়ছেন।

জার্মানিতে এরইমধ্যে ৮ হাজার ৮শরও বেশি মানুষের মৃত্যু হলেও সুস্থ হয়েছেন ১ লাখ ৭০ হাজারেরও উপরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *