যে বাজারে কঠোরভাবে মানা হচ্ছে লকডাউন

করোনাভাইরাস মহামারির পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর প্রথম এলাকা হিসেবে পরীক্ষামূলকভাবে পূর্ব রাজাবাজারে পুরোদমে কার্যকর করা হয়েছে লকডাউন। জরুরি সেবায় নিয়োজিত স্বাস্থ্যকর্মী আর সংবাদকর্মী ছাড়া এলাকাটি থেকে কাউকেই বের হতে দেয়া হচ্ছে না। তবে এ নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। তৎপরতা ছিল আইন শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর।

রাজধানীর পূর্ব রাজাবাজারে এক অন্য সকাল। লকডাউনে বদলে গেছে চেনা রূপ। অলিগলিতে নেই আগের দিনের মতো মানুষের কোলাহল। এলাকার ৮টি প্রবেশপথের ৭টিই পুরোপুরি অবরুদ্ধ। একটিমাত্র প্রবেশমুখ শিথিল আছে কেবল জরুরি প্রয়োজনে বের হওয়ার জন্য। সেখানে মোতায়েন রয়েছে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা।

যদিও দিনের শুরুতে একমাত্র শিথিল গেটে বেধেছিলো বেশ জটলা। জরুরি সেবার বাইরে থাকা সরকারি-বেসরকারি চাকুরিজীবীসহ অনেক কর্মজীবী চেষ্টা করেন কর্মস্থলে যাওয়ার। কিন্তু চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মী আর গণমাধ্যমে কর্মরত ব্যক্তি ছাড়া আর কারোর বাইরে যাওয়ার অনুমতি মেলেনি। বিষয়টি নিয়ে রয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া।

লকডাউনের প্রথম দিন নাগরিকদের অনেকে কেনাকাটা করেন অনলাইনে। ছিল বিশেষ ব্যবস্থায় পণ্য সরবরাহ। বেশ তৎপর পরিচ্ছন্নতাকর্মীরাও।

লকডাউন নিয়ে বাসিন্দাদের মতের ভিন্নতা থাকলেও প্রথম দিন নাগরিকদের সহযোগিতা সন্তোষজনক ছিলো বলেই দাবি প্রশাসনের।

শেরেবাংলা নগর থানা ওসি জানে আলম মুনশি বলেন, স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে যারা যুক্ত আছে, তাদের ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। এছাড়া ইমার্জেন্সি বা সংবাদকর্মীদের ছাড় দেয়া হচ্ছে।

এলাকার নাজনীন স্কুল অ্যান্ড কলেজে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। সেখানে স্থাপন করা হয়েছে নমুনা সংগ্রহ বুথ, ব্যবস্থা আছে আইসোলেশন সেবারও।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *