সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবহারে আগ্রহ নেপালের

ব্যবসাবাণিজ্যের প্রসারে নেপাল বরাবরই সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবহার করতে চায় বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

তিনি বলেন, দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী এটি ব্যবহারের প্রস্তাব দিয়েছেন।

সোমবার ঢাকায় সফররত নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ কুমার গাওয়ালি বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এক মতবিনিময়সভা করেন। মতবিনিময়সভা শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

সভায় নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী প্রদীপ কুমার গাওয়ালি, বাণিজ্য সচিব ড. জাফর উদ্দীনসহ দুই দেশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, নেপালের মেঘা সিটি বিরাটনগর থেকে সৈয়দপুরের বিমানবন্দরের ফ্লাইং টাইম প্রায় ২৫ মিনিট। এ বিমানবন্দর তারা ব্যব হার করতে পারলে কম সময়ের মধ্যে দুই দেশের যোগাযোগব্যবস্থা উন্নত ও সহজ হবে। নেপালের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য বাড়ানোর বিষয়ে সৈয়দপুরসহ অত্রাঞ্চলের মানুষজনও আশাবাদী।

এদিকে দেশের চতুর্থ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর গড়ে তুলতে নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দর এলাকার জমি অধিগ্রহণ চিহ্নিত এবং ফিল্ড বুক তৈরির কাজ শেষ হয় এ বছরেই। এতে সন্নিবেশিত এলাকার জমির অবস্থান, অবকাঠামো, প্রকল্প এলাকার জরিপ গত ১১ জুলাই সম্পন্ন হয়েছে।

নীলফামারী জেলা অধিগ্রহণ শাখা (এলএ) পরিচালিত ওই জরিপকাজ তদারকি করেন তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শাহিনুর আলম।

এ কাজে সহযোগিতা করেন সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)। নিরীক্ষা কার্যক্রমে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সিভিল অ্যাভিয়েশন কর্তৃপক্ষের সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক (ডিডি) মো. মিজানুর রহমান সরকার।

সৈয়দপুর বিমানবন্দর সূত্র হতে জানা যায়, সৈয়দপুর বিমানবন্দর আন্তর্জাতিক প্রকল্পের আওতায় অতিরিক্ত ৯১২ দশমিক ৯০ একর জমি অধিগ্রহণের প্রস্তাব করা হয়। এসব জমির মধ্যে সৈয়দপুর উপজেলার বাঙালিপুর ও পার্বতীপুরে বেলাইচন্ডি ইউনিয়ন রয়েছে।

সৈয়দপুর উপজেলায় ৫৯৫ দশমিক ১৩ একর যার মধ্যে সরকারি সংস্থার ৬০ একর জমি রয়েছে। অপরদিকে বেলাইচন্ডিতে রয়েছে ৩১৭ দশমিক ৭৭ একর জমি ব্যক্তি মালিকাধীন জমি।

সূত্র আরও জানায়, বর্তমানে সৈয়দপুর বিমানবন্দরে বিদ্যমান জমির পরিমাণ ৩৩৬ একর। এর মধ্যে রয়েছে একটি টার্মিনাল ভবন, ৬ হাজার ৮০০ ফুট রানওয়ে ও অন্যান্য অবকাঠামো। জমি অধিগ্রহণের পর ওই রানওয়ে ১২ হাজার ফুটে উন্নীত হবে, যা হবে দেশের বৃহত্তম রানওয়ে।

সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জানান, অধিগ্রহণ সংক্রান্ত জমির মালিকদের ক্ষতিপূরণের জন্য এরই মধ্যে ৪৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *