এ যেন ভিন্ন এক ট্রেন যাত্রা!

দুইমাস পর সীমিত পরিসরে চালু হয়েছে গণপরিবহন। দীর্ঘদিন পর গণপরিবহনের যাত্রীরা সম্পূর্ণ নতুন এক অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছেন। এ যেন ভিন্ন এক ট্রেন যাত্রা!

চট্টগ্রাম থেকে সুবর্ণ এক্সপ্রেস রোববার সকাল ৭টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। চট্টগ্রাম রেল স্টেশনে ঢোকার সময় ছিলো না কোনো জটলা। তিন মিটার দূরত্ব মেনে যাত্রীদের স্টেশনে ঢুকতে হয়েছে। মুখে মাস্ক, ট্রেনে ওঠার সময় প্রত্যেকের হাত হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়ে পরিষ্কার করতে হয়েছে।

স্টেশনে গিয়ে দেখা গেছে, সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনে প্রত্যেকটি বগি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন। জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয়েছে পুরো ট্রেনে। ওয়াশরুমে রাখা হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার, টিস্যু। ট্রেনের কর্মচারীরা সবাই হাতে গ্লাভস, মুখে মাস্ক পড়েছেন। এ যেন অন্যরকম পরিবেশ। এমন ব্যবস্থাপনায় যাত্রীরাও সন্তুষ্ট।

সকাল ৭টায় ট্রেন ছাড়ার এক ঘণ্টা আগে যাত্রীরা আসতে শুরু করেন। স্টেশন থেকে ট্রেনে ওঠার আগ পর্যন্ত কাউকে জটলা করতে দেয়নি জিআরপি পুলিশ ও আরএনবির সদস্যরা। ট্রেনে দুজনের সিটে একজনকে বসানো হয়েছে।

রেলওয়ে স্টেশন ম্যানেজার রতন কুমার চৌধুরী বলেন, সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনে ৪৫৪ সিটের মধ্যে বিক্রি হয়েছে ৩৮৭টি। এই ৩৮৭ জন যাত্রী নিয়ে ট্রেনটি ঠিক সময়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। একইভাবে বিকেল ৫টায় সোনার বাংলা ও রাত সাড়ে ১০টায় উদয়ন চট্টগ্রাম ছেড়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *