মাত্র পাওয়াঃ আজকের সাংবাদিক সম্মেলনে গার্মেন্টস বন্ধ নিয়ে নতুন সিদ্ধান্ত জানালেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী

গাজী’পুরের ১১ পোশাক কা’রখানার ১৫ শ্রমিক ক’রোনাভা’ইরা’সে (কোভিড-১৯) আক্রা’ন্ত হও’য়ার তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে পাঁচ’জন হাস’পাতালে এবং ১০ জন হোম আইসো’লেশনে।গত ৮ মে পর্যন্ত ক’রো’নায় আ’ক্রা’ন্ত ছিলেন ১০ জন, মঙ্গ’লবার পর্য’ন্ত তা বেড়ে দাঁ’ড়িয়েছে ১৫ জনে। পরের পাঁচজ’নের মধ্যে তিনজন গা’জীপুরে এবং দুজনের লা’লমনি’রহাটে নমুনা পরী’ক্ষার পর করো’না সংক্র’মণ ধরা পড়েছে।

কাশি’মপুরের সাবা’বো এলাকার পোশাক কার’খানার এক শ্রমিক ৬ মে শেখ ফ’জিলাতু’ন্নেছা মুজিব কেপিজে হাসপা’তালে করো’না পরী’ক্ষায় পজে’টিভ হলে তিনি গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইলের নাগ’রপুরে পালি’য়ে যান। খবর পাওয়ার পর স্থা’নীয় উপজেলা সহকা’রী কমিশনার (ভূমি) তা’নিয়া মসরুর গিয়ে তাদের বাড়ি’টি ল’কডাউন করেছেন বলে সাংবাদি’কদের জানি’য়েছেন।টাঙ্গা’ইলের নাগর’পুর থানার ওসি আ’লম চাঁদও বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গাজীপু’রের কাশিমপুর সা’বাবো এলাকার একটি কার’খানার ওই পুরুষ শ্রমি’ক নাগ’রপুর থানার গয়হাটা এলাকার পুগলি গ্রামে হোম আ’ইসো’লেশন রয়েছেন।

এদিকে শ্রীপুর উপ’জেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আ’বাসিক মে’ডিকেল অফিসার (আরএমও) এএসএম ফাতেহ্ আকরাম বলেন, তেলিহাটি এলাকার একটি কার’খানার একজন শ্রমিক (৩০) কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়েছে। তিনি হোম আ’ইসো’লেশন রয়েছেন। তার গ্রামের বাড়ি চুয়া’ডাঙ্গার দামুড়’হুদা উপ’জেলায়।

গাজীপুর সদর উপ’জেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরি’কল্পনা কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহিন বলেন, করোনা পজি’টিভ দুই পোশাক শ্রমিক টঙ্গীর গণস্বাস্থ্য হাসপা’তালে, গাজীপুর সদরের বাঘের বাজার শিরির’চালা এলাকার দুই কা’র’খানার চারজন পোশাক শ্রমিক (শিরির চালা) ওই এলা’কিায় ভাড়া বাড়িতে এবং আরও দু’ইজন টঙ্গীর খাঁ পাড়া এলাকায় হোম আ’ইসোলে’শনে আছেন। এই দুইজন টঙ্গীর আউচ’পাড়া এলাকায় পো’শাক কার’খানায় কাজ করেন।

এদিকে শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে ৩১টি দিক নির্দেশনা দিয়েছেন, সেভাবে স্বাস্থ্য সম্মত বিধি মেনে পোশাক কারখানাগুলো চালাতে হবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকেও দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে শ্রমিকদের সুরক্ষা করে কারখানাগুলো চালানো যাবে এবং শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে মালিকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার।

শুক্রবার (১৪ মে) দুপুরে ঢাকার ধামরাইয়ের কুল্লা ইউনিয়নের বড়াইকই গ্রামে করোনাভাইরাসের কারণে শ্রমিক সঙ্কট দেখা দেওয়ায় ‘কম্বাইন হারভেস্টার’ দিয়ে কৃষকের বোরো ধান কাটা উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব বলেন। এসময় তিনি আরো বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে যদি শিল্প কারখানা বন্ধ করে দেওয়া হয় তাহলে দেশে অর্থনীতি সঙ্কট দেখা দিবে।

শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার বলেছেন, বাংলাদেশে প্রচুর খাদ্য মজুত আছে কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না খাদ্যে আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ কৃষিতে আমারও শুধু নিজেদের চাহিদা মেটাবো না বিদেশেও আমরা রপ্তানি করব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *