বাড়ি করার জন্য কোটি টাকা লোন

বাড়ি বানানো কিংবা বাড়ি মেরামতের জন্য আমাদের অনেক টাকা লাগে। অধিকাংশ সময় সেই টাকা হাতের নাগালে থাকে না। ধরা যাক একজনের বাড়ী বানানো কিংবা ফ্ল্যাট কেনার জন্য বিশ লক্ষাধিক টাকার দরকার পড়ে গেল। কি করা যায়? এত টাকা কোথায়? সেই মুহুর্তের জন্য কিছু চট জলদি সমাধান হচ্ছে হোম লোন অর্থাৎ ব্যাংক লোন। বাংলাদেশে হোম লোন পাওয়া

ততটা সহজ নয় যতটা অন্যান্য দেশে পেয়ে থাকে। তাই সরকারী ব্যাংকের পাশাপাশি বেসরকারী ব্যাংক বৃদ্ধি পেয়ে এই অবস্থার কিছুটা উন্নতি হচ্ছে। ব্যাংকিং সেবার উন্নয়ন হচ্ছে। খুব জরুরী না হলে সরকারী ব্যাংকে কেউ আর যাচ্ছে না। বাড়ি সংক্রান্ত লোন এর ক্ষেত্রে তাই বেসরকারি ব্যাংক এগিয়ে আছে নাগরিক সেবায়। এখানে তাই বেসরকারি ব্যাংকে কিভাবে হোম লোন

পাওয়া যাবে সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করছি। একেক ব্যাংকের একেক সীমাবদ্ধতা আছে। এর মাঝে একেক জন আবার একেক ধরনের সেবা নিয়ে এগিয়ে এসেছে। কেউ সময় অথবা সুদের হার কমিয়ে বাড়িয়ে মোটামুটি একটি সুন্দর সাধ্যের কাছাকাছি প্যাকেজ ছেড়েছে বাজারে। একে অবশ্য ব্যাংকার ভাষায় প্রোডাক্ট হিসেবে আখ্যায়িত করা হচ্ছে। ইসলামী

ব্যাংক হোম লোন, কিভাবে আবেদন করবেন? ইসলামী ব্যাংক আপনাকে দিচ্ছে বাড়ি কেনা কিংবা বানানো অথবা রেডি ফ্ল্যাট কিনে নেয়ার সুযোগ। একে ইসলামী ব্যাংক লোন না বলে বলা যায় ইনভেষ্টমেন্ট ফর হাউজ অর্থাৎ বাড়ির জন্য বিনিয়োগ। বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক বাড়ির জন্য বিনিয়োগ করে থাকে। আসুন জেনে নিই দরকারি সব তথ্য। সার্ভিসের নামঃ Bai-

Muajjal / HPSM লোনের পরিমানঃ (টাকায়, ১ মিলিয়ন = ১০লক্ষ) ১) নির্মানঃ ৬০% কিন্তু ১০মিলিয়নের বেশি নয়। ২) ফ্ল্যাট অথবা অ্যপার্টমেন্ট কেনাঃ ৫০% কিন্তু ৭.৫মিলিয়নের বেশি নয়। ৩। তৈরি বাড়িঃ ৫০% কিন্তু ১০মিলিয়নের বেশি নয়। বিনিয়োগের মেয়াদ কালঃ সর্বোচ্চ ১৫ বছর গ্রাহকের ধরন/ কারা আবেদন করবেন? সর্বোচ্চ ৬৫বছর বয়সের যে কোন চাকুরী জীবি, জমির মালিক, পেশাজীবি কিংবা অভিজ্ঞ ব্যক্তিগন আবেদনের যোগ্যতা রাখেন।

রিটার্নের হারঃ ১৫% কিংবা সময়ে সময়ে ব্যাংক কর্তৃক ধার্যকৃত হার। কোথায় আবেদন করবেনঃ নিকটস্থ যে কোন শাখা অফিসে আবেদনের ফর্ম পাওয়া যাবে। সতর্কতাঃ লোন দরকার হলে কোন বাইরের লোকের সাথে যোগাযোগ না করে সরাসরি ব্যাংক ম্যানেজার কিংবা ব্যাংকের ফোন নম্বরে অথবা যে কোন শাখা অফিসে গিয়ে কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলুন। ভুলে অন্য লোকের সাথে কথা বললে প্রতারনার শিকার হতে পারেন।

Author: Rijvi Ahmed

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *