মহাকাশে মুলার চাষ

মহাকাশে দীর্ঘদিন ধরেই বিভিন্ন উপায়ে চাষবাসের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন একদল বিজ্ঞানী। এতে নানা সমস্যায়ও পড়তে হয়। এবার সেই প্রচেষ্টায় সত্যি হল। অনেক প্রতিক্ষার পর আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে মুলার চাষে সফলতা পেয়েছেন তারা।

মুলার বীজ রোপনের কয়েকদিন পরেই সবুজ কচি পাতা বেরিয়েছে। আর এতে খুশিতে আত্মহারা বিজ্ঞানীরা। টাটকা ফসল ফলেছে মহাকাশেই। মুলার বীজ দিয়ে পরীক্ষা শুরু হয়েছিল। এখন কচি কচি পাতা বেরিয়েছে। ফলও ধরেছে।

মহাকাশে যেখানে হাওয়া বাতাস নেই, মাধ্যাকর্ষণ শক্তিও নেই, সেখানে চাষ করা চাট্টিখানি কথা নয়। মাটি লাগবে, পানি, সার, আলো সবই লাগবে। আর মাইক্রোগ্র্যাভিটি বা শূন্য মাধ্যাকর্ষণে এমনিতেই ভেসে থাকতে হয় মহাকাশচারীদের, সেখানে ফসল ফলানোর ঝামেলাও কম নয়।

আইএসএস’র কলম্বাস ল্যাবরেটরি মডিউলের প্লান্ট হ্যাবিটাট-২ তে বীজ থেকে গাছ গজিয়ে ওঠার ছবি প্রকাশ করেছে নাসা। একটি বাক্সে নানা ধরনের তারের মাঝখানে ২০টি সবুজ পাতা সম্বলিত চারাগাছ দেখা গেছে।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, মূলা চাষ করতে খুব বেশি সময় লাগে না। মূলা কাঁচাই চিবিয়ে খাওয়া যায়। আবার এর পুষ্টিগুণও বেশি। তাই মহাশূন্যে মূলা চাষের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আর কিছু দিন পরেই মাটি খুঁড়ে মূলা তোলা হবে। পরীক্ষার জন্য তার নমুনা পাঠানো হবে পৃথিবীতে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *