সুযোগ পেলেই গিটারে ঝড় তোলেন অনার্স পাস এ অটোচালক

নড়াইলের ছে’লে আমিনুল ইস’লাম রাজু। অনার্স পাস করেও চাকরি পাননি। স্ত্রী’-সন্তানের মুখে দু’মুঠো খাবার তুলে দিতে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন অটোরিকশা চালানো। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত খুলনার বিভিন্ন সড়কে অটোরিকশা চালান রাজু। আর সুযোগ পেলেই সুরের সঙ্গে মিশে যান। গানের জটলা দেখলে নিজ হাতে গিটার তুলে নেন রাজু, মনোমুগ্ধকর পরিবেশে মাতিয়ে রাখেন সবাইকে।
জানা গেছে, খুলনা সরকারি বিএল কলেজ থেকে গণিতে অনার্স শেষ করা আমিনুল ইস’লাম রাজুর ছোটবেলার স্বপ্ন সংগীতশিল্পী হওয়া। সেই স্বপ্ন পূরণে বাধা হয়ে দাঁড়ায় দারিদ্র্য। তবু স্বপ্ন দেখতে ভোলেননি তিনি। অটোরিকশা চালিয়ে সংসারে গতি আনার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়া রাজু সময় পেলেই বন্ধুদের গিটার হাতে নিয়ে শুরু করেন গান গাওয়া।

রাজু বলেন, গিটার আর সুরের সঙ্গে আমা’র বন্ধুত্ব ছোটবেলা থেকেই। পড়াশুনার পাশাপাশি সুযোগ পেলেই মেতে উঠতাম গান-আড্ডায়। স্কুল ফাঁকি দিয়ে চলে যেতাম বড় বড় গানের আসরে। আমা’র কোনো গিটার ছিল না। বন্ধুর গিটার নিয়েই টুং টাং করতে করতে শিখে ফেলি। স্কুলজীবন শেষ করে নড়াইল থেকে খুলনায় আসি। ইচ্ছা ছিলো পড়াশোনার পাশাপাশি সংগীতটা রপ্ত করব। কিন্তু দারিদ্র্যের কারণে সেটা আর হয়ে ওঠেনি।

তিনি আরো বলেন, ২০১৭ সালে বিয়ে করি। এরপর ফুটফুটে মে’য়ের বাবা হই। স্ত্রী’-সন্তান নিয়ে সুখে থাকতে চেষ্টা করলাম চাকরি জোটানোর। কিন্তু ভাগ্য সহায় হয়নি। এ কারণে স্ত্রী’-মে’য়ের মুখে দু’মুঠো খাবার তুলে দিতে নেমে পড়লাম জীবনযু’দ্ধে।

রাজু বলেন, করো’নার আগে প্রাইভেট পড়াতাম। কিন্তু এতে চাকরি খোঁজা আমা’র জন্য কঠিন হয়ে পড়ে। এ কারণে প্রাইভেট ছেড়ে চাকরির জন্য বিভিন্ন জায়গায় ছোটাছুটি করি। শত চেষ্টা করেও যখন চাকরি পেলাম না, তখনই অটোরিকশা চালানো শুরু করি। প্রতিদিন ৫০০-৬০০ টাকা আয় হয়। এতে সংসার চালানো কঠিন হলেও সৎ পথে আয় করছি- এটাই আমা’র জন্য শান্তির।

দারিদ্র্যের কাছে হেরে যাওয়ার পাত্র নন আমিনুল ইস’লাম রাজু। শত ক’ষ্টের মাঝেও গান-গিটার ছাড়েননি। সম্প্রতি রাজুর গান গাওয়ার একটি ভিডিও ভাই’রাল হয়েছে। ২ মিনিট ৫২ সেকেন্ডের সেই ভিডিওতে দেখা গেছে- নিজের অটোরিকশায় বসে গিটার বাজিয়ে গান গাইছেন রাজু। তার গানে মুগ্ধ হয়ে ভিডিও করে একদন শিক্ষার্থী। তারাই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে দেয়। এরপরই আলোচনায় আসেন গান পাগল আমিনুল ইস’লাম রাজু।

তিনি বলেন, আমি একজন মিউজিশিয়ান, গান আমা’র স্বপ্ন। এটা নিয়েই এত ক’ষ্টের মাঝে টিকে আছি। তাই সুযোগ পেলে গিটার হাতে নিয়ে গান গাই। সেদিন অটোরিকশা নিয়ে যাচ্ছিলাম। তখন দেখলাম কয়েকজন ছাত্র রাস্তার পাশে বসে গিটার বাজাচ্ছে আর গান করছে। নিজেকে আর ধরে রাখতে পারিনি। তাদের কাছে গিয়ে বললাম- ‘গিটারটা একটু পেতে পারি?’ তারা প্রথমে অ’বাক হলেও পরে আমাকে গিটারটা দিয়েছে। এরপর ওদের পাশে বসে আর্টসেল-এর ‘অনিকেত প্রান্তর’, সিস্টেম অফ আ ডাউন-এর ‘সাচ আ লনলি ডে’ গান গাইলাম। ওরা তখন মুগ্ধ হয়ে ভিডিও করেছে।

সেদিন নিজের গাওয়া গান এভাবে ভাই’রাল হবে বুঝতেই পারেননি রাজু। একের পর এক গণমাধ্যম কর্মীর কল পেয়ে অ’বাক হয়ে যান। এরপরই জানতে পারেন ভাই’রাল ভিডিওর কথা। যারা তার গান গাওয়া আর গিটার বাজানো ভিডিও করেছিল- সেই শিক্ষার্থীদের মন থেকে ধন্যবাদ জানান আমিনুল ইস’লাম রাজু।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *