চার বার ভোটে জিতে সংসদে গিয়েছেন, এখনও পাকা বাড়ি করতে পারেননি মাহবুব আলম

বিধায়ক তো অনেক দুরের ব্যাপার৷ সামান্য কাউন্সিলর, পঞ্চায়েত সদস্য হয়েই গাড়ি, বাড়ি করে ফেলছেন অনেকে৷ জনপ্রতিনিধি হলেই সম্পত্তি বাড়বে, এটাই যেন অলিখিত নিয়ম হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ তা সত্ত্বেও চার চারবার বিধায়ক হয়েও যদিও কেউ পাকা বাড়ির মালিক না হন, তাহলে তো তাঁকে নিয়ে চর্চা হবেই৷

আর ঠিক এই কারণেই হাইভোল্টেজ বিহার ভোটের ফল প্রকাশের পর চর্চায় সিপিআইএমএলের বিধায়ক মাহবুব আলম৷ মাহবুব আলমকে নিয়ে চর্চার আরও একটি কারণ, বিহারে এবার সবথেকে বেশি ভোটের ব্যবধানে জিতেছেন তিনি৷ কাটিহারের বলরামপুর কেন্দ্র থেকে ৫৩ হাজারেরও বেশি ভোটে জয় পেয়েছেন মেহবুব আলম৷ এর থেকেই বোঝা যায়, নিজের এলাকায় কতখানি জনপ্রিয় এই বিধায়ক৷ এই নিয়ে টানা চার বার জিতলেন তিনি৷

৪৪ বছরের মেহবুব আলম চাষের কাজ করেই সংসার চালান৷ গত কয়েকদিন ধরে তাকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতেও চর্চা চলছে৷ অনেকেই বলছেন, ‘দেশের প্রতিটি কেন্দ্রেই এমন জনপ্রতিনিধি দরকার৷’ মেহবুব আলমের ছবি দিয়ে কেউ আবার লিখেছেন, ‘ইনি পরিযায়ী শ্রমিক নন, একজন বিধায়ক৷’ ফেসবুকে আর একজন লিখেছেন, ‘মেহবুব আলমের আসল সম্পদ তার সততা৷’

বাড়ি যখন করতে পারেননি, তখন গাড়িও যে নেই তা বলার অপেক্ষা রাখে না৷ কোথাও যেতে হলে পায়ে হেঁটে নয়তো বাস, ট্রেন, অটোতেই যান মেহবুব আলম৷ বিহার বিধানসভায় এবার যে বিধায়করা নির্বাচিত হয়ে যাচ্ছেন, তাদের মধ্যে ৮১ শতাংশই কোটিপতি! তার মধ্যে মেহবুব আলম সত্যিই ব্যতিক্রম৷ এ বছর মহাজোটে সামিল হয়ে লড়ে বিহারে অপ্রত্যাশিত ভাল ফল করেছে বামেরা৷ ২৯টি আসনে লড়ে ১৬টিতে জিতেছে তারা৷ তার মধ্যেও সবথেকে বেশি চর্চায় মেহবুব আলমই

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *