সংসার ভাঙার গুঞ্জনের মাঝে নতুন পোস্ট শ্রাবন্তীর

শ্রাবন্তী-রোশনের সুখের সংসারে নাকি ফাটল ধরেছে, এখন আর এক ছাদের তলায় থাকছেন না এই দম্পতি। দিন কয়েক আগেই এই খবর জানাজানি হতেই হইচই পড়েগিয়েছে টলিপাড়ার অন্দরে। শ্রাবন্তীর কথায়, রোশনের মা অ’সুস্থ হওয়াতেই নাকি আ’দালা থাকছেন তাঁরা।

যদিও রোশনের কথায় ‘পুজো’র আগে থেকেই আম’রা আলাদা থাকছি, এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে পারব না, অ’তীতের স’ম্পর্কে আমি শ্রদ্ধা করি’। টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে এ কথা জানিয়েছেন শ্রাবন্তীর তৃতীয় স্বামী। শ্রাবন্তী নিজেও জানিয়েছেন- ‘আমাদের স’ম্পর্কের হানিমুন পর্ব শেষ’। তবে এখনই হাল ছাড়তে না-রাজ অ’ভিনেত্রী।

রোশনের সঙ্গে বিয়ে, হানিমুন সহ একগুচ্ছ ছবি ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল থেকে ডিলিট করে দিয়েছেন শ্রাবন্তী। একে অ’পরকে ইনস্টায় আনফলোও করে দিয়েছেন তাঁরা। শ্রাবন্তীর বিয়ে ভাঙার চর্চা যখন তুঙ্গে, তখনও কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়া থেকে কোনরকম ব্রেক নেননি নায়িকা। বরং, শনিবার ইনস্টায় নতুন ছবি পোস্ট করতে দেখা গেল শ্রাবন্তীকে।

সেখানে মা’থাভর্তি চওড়া সিঁদুর, আর ছোট্ট লাল টিপে ভা’রী মিষ্টি লাগছে শ্রাবন্তীকে। নায়িকার পরনে রয়েছে লাল পার সবুজ সিল্কের ভা’রী শাড়ি, সঙ্গে লাল ব্লাউজ। সুপারস্টার পরিবারের শ্যুটিংয়ের ফাঁকেই এই ছবি তুলেছেন শ্রাবন্তী তা স্পষ্ট। ছবিতে মেক আপ আর্টিস্ট সুবীর মান্নার সঙ্গে লেন্সব’ন্দি শ্রাবন্তী, তাঁকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জন্ম’দিনের।

শুধু ইনস্টাগ্রাম নয়, ফেসবুকেও কিন্তু অ্যাক্টিভ শ্রাবন্তী। দু-দিন আগেই নীল শাড়িতে অ’পরূপা শ্রাবন্তী ধ’রা দিয়েছিলেন ফেসবুকে। জানিয়েছিলেন তাঁর শাড়ি প্রে’মের কথা।

উল্লেখ্য ২০১৯ সালের ১৯ এপ্রিল সূদূর অমৃ’তসরে রোশন সিংয়ের সঙ্গে চুপিসাড়ে বিয়ের পর্ব সারেন শ্রাবন্তী। এর আগে পরিচালক রাজীব বিশ্বা’সকে খুব অল্প বয়সে বিয়ে করেছিলেন নায়িকা, তাঁদেরই ছে’লে ঝিনুক। দীর্ঘদিন আলাদা থাকবার পর ২০১৬ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে বিচ্ছেদ হয় রাজীব-শ্রাবন্তীর।

সেই বছরই মডেল কিষাণ বিরাজের সঙ্গে আইনি বিয়ে সেরে ফেলেন নায়িকা। বছর ঘুরতে না ঘুরতেই ভেঙে যায় সেই বিয়ে। কাজের ক্ষেত্রে আপতত ‘সুপারস্টার পরিবার’-এর সঞ্চালক হিসাবে দেখা যাচ্ছে শ্রাবন্তীকে। নতুন কোনও ছবির কাজে এখনও হাত দেননি নায়িকা। তবে কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের কাবেরী অন্তর্ধানে প্রসেনজিত্ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে কাজ করতে দেখা যাবে শ্রাবন্তীকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *