তৃতীয় বিয়ে ভাঙা নিয়ে শ্রাবন্তীর ছেলের ফেসবুক পোস্ট মুহূর্তেই ভাইরাল

দীর্ঘদিনের প্রেমিক রোশন সিংয়ের সঙ্গে ২০১৯ সালের ১৯ মে তৃতীয়বারের মতো বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন কলকাতার জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়। তবে বছর না ঘুরতেই এ সংসারও নাকি ভাঙছে!
তার জীবনে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পুরুষের রদবদল হলেও কেউই দীর্ঘস্থায়ী হননি। তবে একজন পুরুষ তার জীবনে সবসময়ের জন্য প্রিয়তম জায়গায় রয়েছে। সে হচ্ছে তার ও রাজীবের ছেলে ঝিনুক তথা অভিমন্যু চট্টোপাধ্যায়। ছেলের সঙ্গে নিয়মিত সোশ্যাল মিডিয়ায় ছবি শেয়ার করেন তিনি।

শ্রাবন্তী-র তৃতীয় বিয়ে ভাঙছে! এই প্রশ্ন এখন ভেসে বেড়াচ্ছে সর্বত্র।

এদিকে এক বছর আগে করওয়া চৌথের দিনের ছবি পোস্ট করেছিলেন টলিউডের সেলিব্রিটি নায়িকা শ্রাবন্তী। শুধু এই ছবি পোস্ট করেই ক্ষান্ত হননি, তিনি আরো একটি পোস্টে স্বামীকে পাশে নিয়ে ছবি দিয়েছিলেন। যেখানে স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছিলেন কীভাবে তার স্বামী তার জন্য নিরম্বু উপবাস রেখেছিলেন।

কিন্তু একবছর আগের এই রঙিন ছবি আজ গুঞ্জনের জেরে ধূসর। রোশনের সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেল ইনস্টাগ্রামে শ্রাবন্তীর সঙ্গে এই মুহূর্তের কোনো ছবি নেই। এমনকি তাদের বিয়ের ছবিও রাখা নেই।

এই রকম টালমাটাল পরিস্থিতির মধ্যেই শ্রাবন্তীর ছেলের একটি পোস্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় সুপার ভাইরাল হয়েছে। সেখানে মা ও ছেলের একেবারে অল্প বয়সের ছবি রয়েছে। আর তার ট্যাগলাইনে লেখা রয়েছে Something big coming up 😵- অর্থাৎ বড় কিছু আসছে।

আরো পড়ুন: বিয়ের দু’দিন না যেতেই নেহার নানারকম দাবিতে অস্থির স্বামী রোহন

এই ছবির সঙ্গে একটি মিউজিক কম্পোজিশনের ভিডিও রয়েছে। তার পাশে ইতিমধ্যেই নিন্দুকদের কমেন্ট এসে পোস্টটিকে ভাইরাল করে দিয়েছেন। তারা লিখেছেন সামনেই কি শ্রাবন্তীর চতুর্থ বিয়ে।

শ্রাবন্তীর ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে প্রোফাইল পিকচার একার হলেও ফেসবুকে তার অফিসিয়াল হ্যান্ডেলের ডিপি ও কভার পিকচার দুটিই রোশনের সঙ্গে।

শ্রাবন্তীর প্রোফাইলে রোশেনর সঙ্গে শেষ শেয়ার হওয়া ছবি যেটা রয়ে গেছে সেটা ২০১৯-র ৯ অক্টোবরের। এরপর আর কোনো ছবি নিজের তৃতীয় স্বামীর সঙ্গে সোশ্যাল হ্যান্ডেল শেয়ার করেননি শ্রাবন্তী। অথচ নিজের ছেলে ও পেশাগত জগতের বন্ধুদের সঙ্গে নিয়মিত ছবি আপলোড করেন তিনি।

সবশেষে, শ্রাবন্তীর তৃতীয় বিয়ে এবার সত্যি টিকবে কিনা এটাই দেখা পালা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *