জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হলে বাংলাদেশের যে লাভ হবে

ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হলে বাংলাদেশের সংকটপূর্ণ ইস্যুগুলোতে, যুক্তরাষ্ট্র আগের চেয়ে আরও বেশি সহযোগিতা করবে বলে মনে করেন আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষকরা। পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসন প্রত্যাশী বাংলাদেশিরা, সহজে স্থায়ী হওয়ার সুবিধা পাবেন বলেও মনে করছেন তারা। ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমলে, অভিবাসনবিরোধী যে মনোভাব গড়ে উঠেছিল তা থেকে সরে আসবে ওয়াশিংটন।

নানামুখী ব্যর্থতায় মাত্র চার বছরেই ভোটারদের আস্থায় চিঁড় ধরিয়েছেন রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্প। তাই নির্বাচনী মাঠে সাধারণ মার্কিন নাগরিকদের ভোট অনেকাংশে কম পেয়েছেন তিনি। পক্ষান্তরে এগিয়ে এসেছেন, ডেমোক্র্যাট নেতা ও সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। শেষ পর্যন্ত বাইডেন ক্ষমতা গ্রহণ করলে, তা কেবল যুক্তরাষ্ট্রই নয়, পুরো বিশ্ব ব্যবস্থার জন্যই ভালো বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক সাহাব এনাম খান বলেন, ‘পররাষ্ট্র নীতিতে যেটা ওবামা প্রশাসন পর্যন্ত আমরা দেখেছি সেগুলো কিন্তু চলতে থাকবে। যুক্তরাষ্ট্র জো বাইডেনের নেতৃত্বে বহুপাক্ষিক বিশ্বব্যবস্থার দিকে আবার ঝুঁকে পড়বে। ‘

অভিবাসীবান্ধব হওয়ায় প্রবাসী বাংলাদেশি আর মার্কিন মুলুকে পাড়ি জমাতে আগ্রহীদের জন্য বাইডেন প্রশাসনকেই গুরুত্ব দিচ্ছেন এই বিশ্লেষক।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশ্লেষক সাহাব এনাম খান বলেন, ‘স্বস্তির জায়গাটা হলো, যে ধরণের ইমিগ্রেশন পলিসি মার্কিন প্রশাসন নিচ্ছিলেন, সে জায়গা থেকে হয়তোবা আমরা একটা বড় রকমের পরিবর্তন দেখব। দ্বিতীয়ত অভিবাসন ছাড়াও যারা মিডেল ইনকাম বা লোয়ার ইনকাম আছেন তাদেরও একটা টেক্স সম্পর্কিত রিলিফ আমরা দেখব। সেখানেও কিন্তু আমাদের বাংলাদেশি প্রবাসী আছেন তাদের একটা স্বস্তি হবে।’

গেলো কয়েক বছরে ট্রাম্প প্রশাসন বৈশ্বিক বিভিন্ন সংস্থায় কমিয়েছে অনুদান। বাইডেন অনুদান বাড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এতে জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে ঢাকা তার কাঙ্ক্ষিত সুবিধা আদায় করে নিতে পারবে। এছাড়া রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানেও নতুন করে, আশার আলো দেখছেন তিনি। জলবায়ু সংকট মোকাবিলায়ও ওয়াশিংটনকে পাশে পাবে ঢাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *