বিয়ের ২২ দিনের মাথায় কিশোরী বধূকে তালাক ৭৮ বছরের বৃদ্ধের

ইন্দোনেশিয়ার পশ্চিম জাবা দ্বীপের ৭৮ বছর বয়সী বৃদ্ধ আবা সারনা। নিজের বয়সের তুলনা ৬১ বছরের ছোট এক কিশোরীকে বিয়ে করেন। জাবা দ্বীপের সুবাং এলাকার এই বৃদ্ধের বিয়ে মাস খানেক আগেই ১৭ বছর বয়সী কিশোরী ননি নভিতাকে বিয়ে করে হইচই ফেলে দেন।

নব দম্পতির বয়সের পার্থক্যের কারণে বেশ আলোচনা জন্ম দিয়েছিল তখন। তবে সে আলোচনা ২২ দিনেই শেষ করে নতুন আলোচনার জন্ম দিয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার এই বৃদ্ধ। বিয়ের মাত্র ২২ দিনের মাথায় কিশোরী বধূকে বিচ্ছেদের চিঠি পাঠিয়েছেন ৭৮ বছর বয়সী আবা। তবে তার এমন বিচ্ছেদের সিদ্ধান্তে বেশ হইচই শুরু হলেও হতভম্ব কিশোরী বধূর পরিবার। এখনও পর্যন্ত তারা জানে না, কি কারণে তাদের কন্যাকে বিচ্ছেদের চিঠি পাঠানো হয়েছে।

কিশোরী বধূ নভিতার পরিবারের দাবি, বিয়ের ২২ দিনের মধ্যে এমন কি ঘটলো যে বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছে আবা। নব দম্পতির মধ্যে কোনো দ্বন্দ্ব বা ঝগড়াও হয়নি একবারও। নভিতার বোন ইয়ান সে দেশের এক সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমি বিস্মিত। ওদের মধ্যে কোনও মনোমালিন্য নেই। তিনি জানান, বোনের বিয়ে ৭৮ বছরের একজন বৃদ্ধের সঙ্গে হচ্ছে তা নিয়েও তার পরিবারেরও কোনো আপত্তি ছিল না।

নভিতার পরিবারের অভিযোগ, আবা ও তার পরিবারের দিক থেকেই সমস্যার কারণে এই বিচ্ছেদের ঘটনা ঘটেছে। বিয়ের এক মাস পার না হতেই এমন বিচ্ছেদে ভেঙে পড়েছে কিশোরী বধূ নভিতা। তার পরিবারের দাবি, বিচ্ছেদের চিঠি পাওয়ার দিন থেকে নভিতাকে অবসাদগ্রস্ত দেখা যাচ্ছে। এই খবর পাওয়ার পর একদিন কোনও খাবারও খায়নি সে। অন্যদিকে, আবা’র পরিবারের অভিযোগ ছিল, বিয়ের আগেই অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন নভিতা। কিন্তু এই অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছেন নভিতার বোন ইয়ান।

সূত্র: আনন্দবাজার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *