মৃ’ত জমজ সন্তান বুকে নিয়ে আদালতে বিচার চাইতে গেলেন অসহায় বাবা

বাংলাদেশের ঢাকায় উচ্চ আদালত প্রাঙ্গণে দুই মৃত নবজাতককে বুকে জড়িয়ে হাজির হয়েছেন এক বাবা বিচার চাইতে।

মৃত যমজ সন্তানের বাবা আবুল কালাম আজাদ সুপ্রিম কোর্টের এমএলএসএস বা অফিস সহকারী হিসেবে কাজ করেন।

তার অভিযোগ ঢাকার তিনটি হাসপাতালে ওই নবজাতকদের নিয়ে ঘুরলেও কোথাও চিকিৎসা পাওয়া যায়নি।

এরপর দুটি শিশুর মৃত্যু হলে তিনি ন্যায়বিচার চাইতে লাশ নিয়েই সোজা হাইকোর্টে গিয়ে হাজির হন।

ওই শিশুদের কেন হাসপাতালে ভর্তি করা হল না জানতে চেয়ে সোমবার অভিযুক্ত তিনটি হাসপাতালের পরিচালককে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ব্যাখ্যা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি আহমেদ সোহেলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই নির্দেশ দেন।

সেই সাথে চিকিৎসা দেয়ার ক্ষেত্রে কেন “অবহেলা করা” হয়েছে এবং হাসপাতালগুলো “কেন নিষ্ক্রিয়তা দেখিয়েছে” তার কারণ জানতে চেয়ে আদালত আদেশ দিয়েছে।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক বলেন, রোববার সকালে তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী অসুস্থবোধ করলে তিনি সিএনজি অটোরিকশায় করে তাকে মুগদা ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে নিয়ে যান।

তিনি জানান, হাসপাতালে নেয়ার পথে সিএনজিতেই যমজ সন্তান প্রসব করেন তার স্ত্রী।

“পরে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে স্ত্রীকে ভর্তি করতে পারলেও নবজাতকদের জরুরি চিকিৎসা দেয়ার মতো সুবিধা হাসপাতালটিতে নেই বলে জানানো হয়।”

তিনি বলেন, “শিশু দুটি অপরিণত হওয়ায় তাদের জরুরি আইসিইউ সেবার প্রয়োজন ছিল। সেই চিকিৎসা সুবিধা না থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নবজাতকদের শ্যামলীর ঢাকা শিশু হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলে।”

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল জানান, পরে মি. আজাদ শিশু দুটিকে অ্যাম্বুলেন্সে করে শিশু হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে জানানো হয় শিশুদের বেডে ভর্তি করতে গেলে প্রতি শিশুর জন্য পাঁচ হাজার টাকা, মোট ১০ হাজার টাকা খরচ পড়বে।

“এতো টাকা না থাকায় শিশু দুটিকে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানেও তাদেরকে কোন চিকিৎসা দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ আনা হয়েছে।”

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক জানান, দ্রুত চিকিৎসা পেতে হাইকোর্টের এক বিচারপতির সাথে কথা বলে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেন।

“কিন্তু তার ব্যক্তিগত সহকারী জানান যে পরিচালক মিটিংয়ে আছেন। দীর্ঘসময় পর জানানো হয় পরিচালক বাড়ি চলে গেছেন।”

তিনি বলেন, এরপর একজন চিকিৎসক অ্যাম্বুলেন্সের ভেতরে শিশু দুটিকে পরীক্ষা করে জানান, তারা আর বেঁচে নেই।

এরপর শিশু দুটির লাশ নিয়ে উচ্চ আদালতে বিচার চাইতে আসেন তিনি।

পুরো বিষয় শুনে হাইকোর্ট, অভিযুক্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা শিশু হাসপাতাল এবং ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল মুগদার পরিচালককে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে নির্দেশ দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *