মায়ের লাশ দেখে মারা গেলেন মেয়ে, মেয়ের শোকে বাবারও মৃত্যু

কুষ্টিয়ার মিরপুরে মাত্র ১২ ঘণ্টার ব্যবধানে মা-বাবা ও মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। পরপর তিনজনের মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

মৃতরা হলেন- মিরপুর উপজেলার ধুবাইল ইউপির গোবিন্দগুনিয়া গ্রামের লালন মল্লিক, তার স্ত্রী আনজেরা খাতুন ও মেয়ে আঙ্গুরী খাতুন।

স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন আনজেরা খাতুন। শুক্রবার রাত পৌনে ১১টার দিকে তিনি বাড়িতে মারা যান।

শনিবার সকাল ৯টায় গোবিন্দগুনিয়া কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। এদিকে মায়ের মরদেহ দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন মেয়ে আঙ্গুরী খাতুন। পরে স্বামী মক্কেল আলীর বাড়ি মিরপুর পৌরসভার নওয়াপাড়ায় স্বামী গিয়ে একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে হাসপাতালে নেয়ার পথে বেলা ১১টার দিকে আঙ্গুরীও মারা যান।

এরইমধ্যে তিনজনের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার সকাল ৯টায় গোবিন্দগুনিয়া কবরস্থানে দাফন করা হয় লালন মল্লিকের স্ত্রী আনজেরা খাতুনকে, দুপুর ২টায় পৌরসভার নওয়াপাড়া কবরস্থানে দাফন করা হয় তার মেয়ে আঙ্গুরী খাতুনকে এবং বিকেল ৫টায় গোবিন্দগুনিয়া কবরস্থানে দাফন করা হয় লালন মল্লিককে।

মেয়ের মৃত্যুর খবর শুনে নিজ বাড়িতেই বেলা সাড়ে ১১টায় মারা যান লালন মল্লিক। মাত্র ১২ ঘণ্টার মধ্যে মা, মেয়ে ও বাবার এমন মৃত্যুতে হতভম্ব এলাকাবাসী।

ধুবাইল ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম বলেন, এটা খুবই মর্মান্তিক ঘটনা। দীর্ঘদিন ধরে হার্টের সমস্যায় ভুগছিলেন আনজেরা খাতুন। শুক্রবার রাতে মারা যান তিনি। সকাল ৯টায় তাকে দাফন করা হয়। বেলা ১১টায় জানতে পারি তার মেয়ে আঙ্গুরী খাতুন মারা গেছেন। কিছুক্ষণ পরেই জানতে পারি স্ত্রী ও মেয়ের শোকে নিজ বাড়িতে মারা গেছেন লালন মল্লিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *