শ’রীরের যে ৮ স্থানে তিল থাকা মানেই ধনী হওয়ার লক্ষণ!

পৃ’থিবীতে ধনী হতে সবাই চায়। স’চ্ছলতা ও বি’লাসিতার জীবন কা’টাতে মানুষ অক্লা’ন্ত প’রিশ্রমও করে। তবে কেউ কেউ স’ফল হন, আর অনেকেই রয়ে যায় ব্য’র্থ।

তবে মানুষের ভ’বিষ্যৎ ক’তটা ভালো হবে তা নি’র্ভর করে তার ক’র্মের উ’পর। আর বা’কিটা হলো ভাগ্য। যা আগে থেকেই নি’র্ধারণ করা থাকে। তবে ভা’গ্য ব’দলের ক্ষে’ত্রেও ক’ঠোর পরিশ্রমের কোনো বিক’ল্প নেই।

স’মুদ্রশা’স্ত্র মতে, ভা’গ্য বা ভ’বিষ্যৎ গড়ে তো’লার ম’তো কিছু বিষয় মানুষ জ’ন্মগ’ত ভাবে নিজে’র ম’ধ্যে পেয়ে থাকে। যার একটি মা’ধ্যম হলো তিল। শ’রীরে বি’ভিন্ন জা’য়গায় তিলের অব’স্থান আ’পনার ভ’বিষ্যৎ স’স্পর্কে শুভ-অশু’ভ অনেক কিছুই ই’ঙ্গিত দিয়ে থাকে।

তি’লত’ত্ত্বের মতে, শ’রীরের বি’ভিন্ন স্থা’নের তিল ব’লে দি’তে পারে ভ’বিষ্যতে কী আছে আপনার ভা’গ্যে। কিংবা শ’রীরের কোথায় তিল থা’কলে কী হয় তা তিল দে’খে আ’গাম জা’না যায়।

শুধু তার স’ঠিক অ’র্থ বু’ঝে নিতে হবে। শ’রীরে কিছু কিছু জা’য়গা আছে যেখানে তিল থাকা মানেই ধ’নী হওয়ার ল’ক্ষণ। চলুন তবে জে’নে নেয়া যাক কো’থায় কো’থায় তিল থাকলে স’ম্পত্তি লাভ বা অ’র্থলাভের পথ সু’গম হয়-

ঠোঁ’টের ঠিক ও’পরেই তিল! হ্যাঁ, এমন স্থানে তিল থাকলে বু’ঝতে হবে খুব অ’ল্প বয়স

থেকেই সেই না’রী বা পু’রুষ প্র’চুর ধন-স’ম্পদের অ’ধিকারী হয়ে উ’ঠবেন। এই স্থানে থাকা তিলের ব্য’ক্তিরা একটু জে’দি স্ব’ভাবের হ’ইয়ে থাকেন।
নাকে’র ডা’নদিকে তিল থাকা মানুষটির ধ’নী হয়ে ওঠার স’ম্ভাবনা প্রবল। ৩০ বছর বয়স থেকেই এরা সা’ফল্যের সিঁ’ড়ি চ’ড়তে থাকেন।

স’মুদ্রশা’স্ত্র বি’শেষ’জ্ঞদের মতে, যাদের কো’মরে তিল থাকে তাদের ধনী হওয়ার স’ম্ভাবনা প্রবল থাকে। দিন দিন তাদের স’ম্পত্তি সমৃ’দ্ধি হতে থাকে।
বি’য়ের পর অনেকেই প্র’চুর স’ম্পদের মালিক হন। এক্ষে’ত্রে যাদের শ’রীরে যে কোনো

স্থানে গাঢ় র’ঙের ও ছোট্ট আ’কারের তিল থাকে, তাহলে বুঝে নিন সেই না’রী কিংবা পু’রুষ বিয়ের পর ধনী হতে চ’লেছেন। এমনটাই দা’বি স’মুদ্রশা’স্ত্র বি’শে’ষজ্ঞদের।

যদি কারো ডান হাতের চে’টোতে তিল থাকে, তাহলে সেই ব্য’ক্তি খুব অল্প বয়স থেকেই স’ম্পত্তি পেতে থাকেন। ফলে স’হজেই তাদের ধনী হওয়ার স’ম্ভাবনা থাকে।

স’মুদ্রশা’স্ত্র বি’শেষজ্ঞদের মতে, নাভির আশেপাশে বা চি’বুকে তিল থাকা মানেও ধ’নী হওয়ার স’ম্ভাবনা প্রবল।

বু’কে তিল থাক’লে সেই না’রী বা পুরুষ সহ’জে ধনী হন। পা’শাপাশি এরা খুবই শা’ন্তিপূর্ণ জী’বন যাপন করেন।
এছা’ড়া কানের আ’শেপাশে তি’ল থাকলেও তার ধ’নী হওয়ার স’ম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।

আরো পড়ুন: রং নম্বরে পরিচয়, প’রকী’য়ার টানে ঘরে ছেড়ে ধ”র্ষি’ত গৃহবধূ

পঞ্চগড়ে মাইক্রোবাসে রা’তভ’র এক গৃ’হব’ধূকে ধ”র্ষ’ণের অ’ভি’যো’গে ৪ জনকে গ্রে’ফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) দিনগত রাতে ওই চারজনকে তাদের নিজ বাড়ি থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে।

গ্রে’ফতা’রকৃ’তরা আ’সা’মির হলেন- পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের সোনাপাড়া এলাকার জাহিদুল ইসলাম রতন (২৫), একই এলাকার অটোরিকশা চালক আমিরুল ইসলাম (৩০), পঞ্চগড় পৌর এলাকার নিমনগর গ্রামের মাইক্রোবাস চালক শহিদুল ইসলাম (২৭) ও পঞ্চগড় সদর উপজেলার ধা’ক্কামারা ইউনিয়নের শিকারপুর এলাকার নুর আলম (২৪)।

গ্রে’ফতা’রকৃতদের মধ্যে জাহিদুল ইসলাম রতন ও মাইক্রোবাস চালক শহিদুল ইসলামকে ধ”র্ষ’ক হিসেবে এবং আমিরুল ইসলাম ও নুর আলমকে ধ”র্ষ’ণে সহযোগিতা করার অ’ভিযো’গে অ’ভিযু’ক্ত করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃত চারজনকে বুধবার (২৮ অক্টোবর) বিকেলে আদালতের মাধ্যমে জে’লহা’জতে প্রেরণ করা হয়েছে।

অ’ভি’যোগ সূত্রে জানা যায়, বোদা উপজেলার ময়দানদিঘী ইউনিয়নের এক গৃ’হব’ধূর সাথে সম্প্রতি রং নাম্বারে একই ইউপির সোনাপাড়া এলাকার যুবক জাহিদুল ইসলাম রতনের পরিচয় হয়। রতন মাঝে মধ্যে মোবাইল করে গৃ’হব’ধূর খোঁ’জ খবর নিতো। সোমবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে স্বামীর সাথে ওই গৃ’হব’ধূর ঝ’গ’ড়া হয়। এ সুযোগকে কাজে লা’গিয়ে রতন গৃহবধূর মোবাইল ফোনে কল করে সা’ন্ত্ব’নার পাশাপাশি বি’য়ে’রও প্রস্তাব দেয়। গৃ’হবধূ তার প্র’লো’ভ’নে পড়ে ওইদিনই বাড়ি থেকে বের হয়ে ময়দানদিঘী বিআরটিসি কাউন্টারে যায়।

এরপর রতন সেখান থেকে ফু’সলি’য়ে গৃহবধূকে কাজী অফিসে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে অটোরিকশায় বোদা বাজার হয়ে পঞ্চগড় রেলস্টেশনে নিয়ে যায়। সেখানে খাওয়া দাওয়ার পর গ’ভীর রা’তে শহিদুলের মাইক্রোবাসে মা’লাদা’ম এলাকার এক বন্ধুর বাড়িতে নিয়ে যায়। কিন্তু সেখানে আ’শ্রয় না পেয়ে গৃহবধূকে মাইক্রোবাসে পঞ্চগড় মৈত্রি ফিলিং স্টেশনের সামনে নিয়ে র’তন ও মাইক্রোচালক ধ”র্ষ’ণ করে। এ সময় অটোরিকশা চালক আমিরুল ও নুর আলম তাদের পা’হা’রা দেয় বলে জানা যায়।

রা’তভ’র পা’লা’ক্র’মে ধ”র্ষ’ণ শেষে ভোরে গৃ’হব’ধূকে মোটরসাইকেলে বোদা বাসস্ট্যান্ডে না’মিয়ে দিয়ে র’তন পা’লি’য়ে যায়। খবর পে’য়ে গৃ’হব’ধূর স্বামী তাকে সেখান থেকে উ’দ্ধা’র করে বাড়ি নিয়ে যায়। পরে মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) রাতে ভু’ক্ত’ভো’গী গৃ’হব’ধূ বো’দা থা’নায় চারজনকে আ’সা’মি করে একটি মা’ম’লা দা’য়ের করেন।

মা’মলার পরেই একই দিন রাতেই অ’ভিযু’ক্ত রতনকে গ্রেফ’তার করে জিজ্ঞাসাবাদে অপর ৩ জনকে গ্রেফ’তার করা হয়। এবং তাদের ব্যবহৃত মাইক্রোবাসটিও জ’ব্দ করা হয়।

বোদা থা’নার ওসি (তদন্ত) আবু সায়েম মিয়া রাতে সময় নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ‘মা’মলার পরেই একই দিন রা’তেই অ’ভিযু’ক্ত রতনকে গ্রেফ’তার করে জি’জ্ঞা’সাবা’দে অপর ৩ জনকে গ্রেফ’তার করা হয় এবং তাদের ব্যবহৃত মাই’ক্রোবাসটিও জ’ব্দ করা হয়। বুধবার (২৮ অক্টোবর) বিকেলে তাদের আ’দালতের মাধ্যমে জে’ল হা’জ’তে পা’ঠা’নো হয়েছে।

Author: Rijvi Ahmed

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *