গলার স্বর পরিবর্তন করে প্রবাসী নারী সেজে ফেসবুকে প্রতারণা করতো মাসুদ

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নারী সেজে প্রতারণার অপরাধে মাসুক মিয়া ওরফে মাসুদ (২৮) নামে এক যুবককে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-৪)। মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানা এলাকায় মনোহরদী পৌরসভা বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়।

বুধবার (২১ অক্টোবর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে র‌্যাব-৪। র‌্যাব জানিয়েছে, গলার স্বর পরিবর্তন করে নারীকণ্ঠে কথা বলে কখনো প্রবাসী নারী, কখনো পুলিশ অফিসার, কখনো মেয়ের মা-বোন সেজে নিপুণ অভিনয় করে প্রতারক বিকাশের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে মাসুদ।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে র‌্যাব জানায়, বিভিন্ন সময় অভিযোগ আসে, মেয়েদের নামে ফেইক ফেসবুক আইডি খুলে সুন্দরী মেয়ের ছবি দিয়ে বিভিন্ন জনকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে নানাভাবে প্রলুব্ধ করে বিকাশের মাধ্যমে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ভুয়া আইডি ও প্রোফাইল পিকচার দিয়ে ফেসবুক ব্যবহার করে বন্ধু হওয়ার আমন্ত্রণ করা হয়। এ আমন্ত্রণে সাড়া দিলেই হয় মোবাইল নম্বর দেওয়া-নেওয়া। দীর্ঘ সময় ধরে নারীকণ্ঠে বন্ধুত্বপূর্ণ আলাপ, প্রেম, ভালোবাসা। একপর্যায়ে বন্ধুর সঙ্গে দেখা করার জন্য তিনি ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন। পথে দুর্ঘটনা আবার কখনো হাসপাতালে ভর্তি, তাৎক্ষণিক মিটমাট করার জন্য প্রয়োজন ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। কিন্তু সঙ্গে এত টাকা নেই, তাই বন্ধুর শরণাপন্ন হতে হয়। বন্ধুও সরল বিশ্বাসে ভালোবাসার টানে বিকাশের মাধ্যমে কাঙ্ক্ষিত টাকা পাঠিয়ে দেন। তারপর থেকে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। ধরা পড়ে যাওয়া এড়াতে কখনো ভিডিও কলে কথা বলতো না প্রতারক।

এমন অভিযোগের ভিত্তিতে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. সাজেদুল ইসলাম সজল এর নেতৃত্বে র‍্যাব-৪, সাইবার মনিটরিং সেলের একটি চৌকস আভিযানিক দল ২০ অক্টোবর নরসিংদী জেলাধীন মনোহরদী থানা এলাকায় মনোহরদী পৌরসভা বাজার থেকে প্রতারক মাসুক মিয়া গ্রেফতার করে।

আসামিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে এএসপি জিয়াউর জানান, আসামি ডিজিটাল প্রতারক মাসুক মিয়া সোনিয়া আক্তার কেয়া নামে ফেইক ফেইসবুক আইডি খুলে তানজিম মেহেজাবিন খান স্নেহা নামে এক মেয়ের ছবি প্রোফাইল পিকচার হিসেবে ব্যবহার করেন। নিজেকে লন্ডনপ্রবাসী পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ছেলেদের ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে বন্ধুত্ব স্থাপন করে কখনো ম্যাসেঞ্জারে, কখনো মোবাইলে নারীকণ্ঠে কথা বলতেন। বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করে প্রতারণা করে নিরীহ ভুক্তভোগীদের কাছ থেকে এ পর্যন্ত ১৫-২০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন।

এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান তিনি।

Author: Rijvi Ahmed

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *