চিত্রনায় সোহেল চৌ’ধুরীর পরিবারকে খুঁজ’ছেন দিতি কন্যা লামিয়া

আশি ও নব্বই দশকে’র জনপ্রিয় চি’ত্রনায়ক সোহেল চৌধু’রী। অ’ভিনয় ক্যারি’য়া’রে খুব বেশি চল’চ্চিত্রে অ’ভিনয় করে’ননি। তারপরও নিজস্ব স্টা’ইল, অ’ভিনয় গুণে দর্শ’ক হৃ’দয়ে জা’য়’গা করে নিয়ে’ছিলেন এই অ’ভি’নেতা।

১৯৮৬ সালে সোহে’ল চৌধুরী সহ-অ’ভি’নেত্রী দি’তির স’ঙ্গে ঘর বাঁ’ধেন। লা’মিয়া চৌধুরী ও দীপ্ত চৌ’ধুরী নামে এ দম্প’তির দুটি স’ন্তা’ন রয়ে’ছে। নব্বই দ’শকে’র মা’ঝামা’ঝি সময়ে এ তার’কা’ দ’ম্প’তির বি’চ্ছেদ ঘটে। তারপ’র দিতির কাছে বড় হতে থাকে লা’মিয়া ও দী’প্ত।

১৯৯৮ সালের ১৮ ডি’সেম্বর রা’জধা’নীর বনানীর ১৭ নম্বর রোডের আ’বেদী’ন টাও’য়ারে ট্রা’ম্প’স ক্লা’বের নিচে সো’হেল চৌধুরীকে গু’লি করে হ’ত্যা করা হয়। মাস দু’য়েক পরেই এ অ”ভিনে’তার মৃ’ত্যু’বা’র্ষিকী’।

বাবার মৃ’ত্যু’বা’র্ষি’কী’ উ’পল’ক্ষে কন্যা লা’মিয়া চৌধুরী কেক তৈরির প’রিক’ল্পনা করে’ছেন। কি’ন্তু কী’ ধর’নের কেক বাবা সোহেল চৌধুরী পছন্দ করতেন তিনি ‘জানেন না। এ কার’ণে যারা সোহে’ল চৌধুরী’র ঘ’নি’ষ্ঠ ছিলেন তা’দের খুঁজ’ছে’ন লামি’য়া।

লামিয়া ফেস’বুক স্ট্যাটা’সে লি’খেছেন: ‘আমি এমন কাউকে খুঁ’জছি যে আ’মা’র বা’বাকে জানতেন। তার জ’ন্ম’দি’ন আসছে। তাকে স্ম’রণ করে আ’মি একটি কে”ক তৈরি ক’রতে চাই। যার স্বা’দ ব্য’ক্তি’গতভা’বে নিতে চাই। কিন্তু বাবা মিষ্টি জা’তীয় জি’নিস প’ছন্দ করতে’ন কি ক’র’তেন না সে বিষ’য়ে কিছু’ই জানি না।’

বাবা’র স’ঙ্গে দুটি স্মৃ’তি উ’ল্লেখ করে লামি’য়া আরো লিখেছেন: ‘বাবার স’ঙ্গে আমা’র মিষ্টি জাতী’য় খাবা’রের দু’টি স্মৃ”তি ‘রয়ে’ছে। এ’কটি হলো— যখন বাবা আ’মাকে তার ব’ন্ধুর বাসা’য় নিয়ে যেতেন, তখন এক গ্লাস সবু’জ জুস পান করতে দি’তেন। আরে’কটি হলো— স্কুল শে’ষে যখন তার বাসায় গিয়ে’ছি তখন হা’র্শির চ’কোলে’ট সিরাপ, স্ট্রবে’রি সি’রা’পের সঙ্গে ভ্যা’নিলা আ’ই’সক্রি’ম খেতে দিতেন। সত্যি বলতে হার্শের সি’রাপ দিয়ে কেক বা’নাতে চাই না।’

সবা’র প্রতি আহ্বা’ন জানিয়ে লা’মিয়া লি’খেছেন: ‘আপনি যদি তাকে (সোহেল চৌধুরী) ব্য’ক্তিগ’ত’ভাবে জা’নেন। তার সঙ্গে ভ্র’মণ করে থাকে’ন, এক’স’ঙ্গে খেয়ে থা’কেন, সময় কা”টিয়ে থা’কেন, তিনি যা খেতে পছ’ন্দ কর’তেন তার কো’নো স্মৃ’তি যদি থাকে তবে দয়া করে আমা’কে’ জানা’ন। আমি জানি তার অনেক বন্ধু এবং পরিচিতজন আমাকে অনুস’রণ করেন। মা’ঝে মাঝে তার স’ম্প’র্কে মজা’দার তথ্য দিয়ে থাকেন। এছাড়া আ’ত্মীয়-স্বজন যারা আমা’র তা’লিকা’য় র’য়েছে’ন তা’রাও জানাতে পারেন। আমা’কে সহ’যো’গিতা করু’ন।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *