দাফনের আগে কেঁদে ওঠা শিশুটির নাম রাখা হলো ‘মরিয়ম’

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে মৃত ঘোষণা করা নবজাতক দাফনের সময় কেঁদে ওঠে। পরে তাকে ফের ঢামেকে ভর্তি করা হয়। শিশুটি নবজাতকদের জন্য বিশেষায়িত এনআইসিইউতে ভর্তি আছে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) এই নবজাতকের নাম রাখা হয়েছে মরিয়ম।

কেন একটি জীবিত নবজাতককে মৃত ঘোষণা করা হলো, এর খোঁজ নিতে গিয়ে নানা অভিযোগ পেয়েছে সময় সংবাদ। নাম না প্রকাশ করার শর্তে হাসপাতালে কর্মরত একজন জানিয়েছেন, গাইনি ও লেবার রুমের ইসিজি মেশিন ঠিকমতো রিডিং দেয় না। এমনকি এসব ডিভাইস নবজাতকদের উপযোগী নয়ও বলেও জানিয়েছেন দায়িত্বরতরা।

এসব অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন সময় সংবাদকে বলেন, এমনটি হওয়ার কথা নয়। এমন ঘটনা সারা পৃথিবীতেই ঘটে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এই মুহূর্তে নবজাতকটিকে সুস্থ করার দিকে সব থেকে বেশি মনোযোগ দেওয়া হচ্ছে বলেও জানান এ কর্মকর্তা।

হাসপাতালটির গাইনি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. নিলুফা সুলতানা জানান, আমি দুদিনের ছুটিতে আছি। নবজাতকটির বিষয়ে হাসপাতাল পরিচালক আমাকে জানিয়েছেন। আমি আমার বিভাগের ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জকে নবজাতকটি বিষয়ে জানিয়েছি। তারা সবকিছু দেখছেন।

নবজাতকটির বাবা বাসচালক ইয়াসিন জানান, দুদিন আগে বুধবার ৬ মাস ১৬ দিনের অন্তঃসত্ত্বা অসুস্থ স্ত্রীকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতাল নিয়ে এলে গাইনি বিভাগের ২১২ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা জানান, তার প্রেশার অনেক হাই। বাচ্চাটি ডেলিভারি না করালে তার প্রেশার কমবে না। চিকিৎসকদের কথায় সম্মতি দেওয়ার পর বুধবার রাতেই তাকে লেবার রুমে নিয়ে নরমাল ডেলিভারির চেষ্টা করা হয়। ডেলিভারি না হওয়ায় তাকে ১১০ নম্বর ওয়ার্ডে রাখা হয়। সেখানে ডাক্তাররা দুদিন চেষ্টার পরও শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) ভোরে তার আবার ব্যথা শুরু হয়। এরপর পৌনে ৫টার দিকে শাহিনুর বেগমের এক মেয়ে বাচ্চা হয়। তবে চিকিৎসকরা জানান বাচ্চাটি মৃত অবস্থায় হয়েছে। এরপর হাসপাতালের আয়া মৃত বাচ্চাটিকে প্যাকেট করে বেডের নিচে রেখে দেয় এবং কোথাও নিয়ে দাফন করার জন্য বলে।

এদিন সকাল ৮টার দিকে তিনি মৃত নবজাতককে আজিমপুর কবরস্থানে নিয়ে যান। সেখানে এক হাজার ৫০০ টাকা সরকারি ফি দিতে না পারায় তাদের পরামর্শে রায়েরবাজার বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে নিয়ে যায়। সেখানে ৫০০ টাকা ফি ও কিছু বকশিস দেওয়ার পর মৃত নবজাতকটির জন্য কবর খোঁড়া শুরু হয়। কবর খোঁড়া প্রায় শেষপর্যায়ে তখন কান্নাকাটির শব্দ শুনতে পান। তিনি আশপাশে কোথাও কিছু না পেয়ে পরে পাশে রাখা নবজাতকটির দিকে খেয়াল করেন। এরপর প্যাকেট খুলে দেখেন বাচ্চাটি নড়াচড়া করছে ও কান্নাকাটি করছে। এরপরই তাকে দ্রুত আবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তাকে চিকিৎসকরা দেখে পরে নবজাতক বিভাগে ভর্তি করেন।

তিনি বলেন, এটি তার দ্বিতীয় বাচ্চা। এর আগে তার ১০ বছরের ইসরাত জাহান নামে আরেকটি মেয়ে রয়েছে। তাদের বাড়ি গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার মালঙ্গা গ্রামে। তুরাগ ধউর নিসাতনগর এলাকায় থাকেন তারা। তার স্ত্রী গৃহিণী ও তিনি বিআরটিসির বাসচালক। চিকিৎসকদের এমন ভুল সিদ্ধান্ত ও পরামর্শের জন্য তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *