অভাবে দামী খাটও বিক্রি করে মেঝেতে ঘুমাতাম

বলিউড তারকার টাইগার শ্রফ বেশ জনপ্রিয়। স’ঙ্গে মৃ’দুভাষী ও ই’ন্ট্রোভার্ট। বর্তমানে বলিউডের জনপ্রিয় অ্যা’কশন তারকা বতিনি। জনপ্রিয় বলিউড তারকার ছেলে শুনলেই মনে হয় মুখে ‘সোনার চামচ ‘ নিয়ে জ’ন্মানো এবং প্রায় সেভাবেই বাকি জীবনটা পায়ের ওপর পা তুলে কা’টানোর মতো সম’স্ত আয়োজন করাই রয়েছে।

তবে টাইগারের জীবনটা সেরকম ভাবলে ভুল হবে বৈকি। ২০০৩ সালে তার বয়স যখন এগারো বছর তখন বুম সিনেমাটি মু’ক্তি পায়। এতে অভিনয় করেন অমিতাভ বচ্চন ও ক্যাটরিনা কাইফ। এটি প্রযোজনা করেন টাইগারের মা আয়েশা শ্রফ। কিন্তু আগেই ফাঁ’স হওয়ায় মু’ক্তির পর ব’ক্স অফিসে মুখ থু’বরে প’ড়ে সিনেমাটি। পাশাপাশি তাদের পরিবারে দেখা দেয় আ’র্থিক সং’কট।

স’ম্প্রতি, একসা’ক্ষাৎ’কারে বড় হওয়ার সময়ে সকলের গো’পনে বাড়ির ভেতরে চ’রম দা’রিদ্র্যতার স’ঙ্গে শ্রফ পরিবারের ল’ড়াইয়ের কথা তু’লে ধ’রলেন টাইগার।

মাত্র ১১ বছর বয়সেই দা’রিদ্রতা হ’ঠাৎই থা’বা ব’সিয়েছিল শ্রফ পরিবারে। কোনও নো’টিশ না দিয়েই। আ’সলে সেই সালে কাইজাদ ও’স্তাদের ‘ বু’ম ‘ ছবিটি প্রযোজনা করেছিলেন টাইগারের মা অনিতা শ্রফ। বলাই বা’হুল্য স’ঙ্গে ছিলেন বাবা জ্যা’কি শ্রফও। ছবিতে অমিতাভ বচ্চন এবং প’দ্মালক্ষীর মতো আন্তর্জাতিক সুপারমডেল থাকা স’ত্ত্বেও বিগ বাজেটের এই ছবি সশ’ব্দে মুখ থু’বড়ে প’ড়ে বক্স অফিসে। যার মা’শুল গু’নতে হয় শ্রফ পরিবারকে।

টাইগারের বলেন, ‘ সেই সময় বাড়ির একের পর এক দা’মি দা’মি আসবাবপত্র বি’ক্রি হয়ে যা’চ্ছে ধী’রে ধী’রে। ফাঁ’কা হতে থা’কতো ঘর। শে’ষপর্যন্ত এমন একটা দিন এসেছিল যেদিন আমা’র খা’টটা পর্য’ন্ত বি’ক্রি করে দিতে হ’য়েছিল। কারণ উ’পায় ছিল না। মেঝেতে শুয়ে কা’টিয়েছি দিনের পর দিন। আমাদের জীবনের সবথেকে খা’রাপ সময় ছিল সেটা !’

তারপরেই টাইগার শ্রফ জা’নান কীভাবে এই ঘ’টনার স্মৃ’তি তাঁকে পরব’র্তীকালে তাঁর ক্যা’রিয়ারে সাহায্য করেছিল। সফল হওয়ার আ’গ্রহ বা’ড়িয়ে দি’য়েছিল। ধী’রে ধী’রে অ্যা’কশন হিরো থেকে ‘ বাগী ‘ হয়ে উ’ঠতে সাহায্য করেছে। টাইগার অভিনীত স’র্বশেষ মু’ক্তিপ্রা’প্ত সিনেমা স্টুডেন্ট অব দি ইয়ার-টু। বর্তমানে বাঘি-থ্রি সিনেমা’র শু’টিং করছেন তিনি। এছা’ড়া মু’ক্তির অপে’ক্ষায় এ অভিনেতার ওয়ার সিনেমাটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *