মোশারফ করিম ও জুঁইয়ের জন্য রেস্টুরেন্টে খাবার ফ্রি ৪ বছর

২০০৪ সালে মোশাররফ করিম ও রোবেনা রেজা জুঁই প্রণয় থেকে পরিণয়ে আবদ্ধ হয়েছিলেন। দেখতে দেখতে চোখের নিমেষে কেটে গেছে ১৬টি বছর। বিয়ের এই দীর্ঘ সময়ে কেটেছে চড়াই-উৎরাইয়ের অনেকটা সময়। সুখ-দুঃখ মিশ্রিত সময়ের অনেকটাই কেটেছে ব্যস্ততায়।

তাই এবার যেন ব্যস্ততা দূরীভূত করে বিয়েবার্ষিকীর সময়টা একান্তে কাটানোর পুরোদস্তুর ব্যবস্থা করে ফেললেন জনপ্রিয় এই দম্পতি। বিয়ের ১৬ বছর পূর্ণ হওয়ার এই সময়টাকে আনন্দময় করে কাটানোর জন্য বেছে নিলেন পাহাড়কে।

খাগড়াছড়ি থেকে দুর্গম পাহাড়ি পথে রাঙামাটির বাঘাইছড়ির পাহাড়ে নিজেদের বিবাহবার্ষিকীর সময়টা পালন করলেন। একান্তে সময় কাটাতে স্ত্রীকে নিয়ে পাহাড়ে ছুটে যান। বাঘাইছড়ির সাজেকে গিয়ে মেঘেদের সঙ্গে যে সময়টা কাটালেন তাকে ‘অদ্ভুত সুন্দর’ সময় হিসেবেই অভিহিত করলেন। ৭ অক্টোবর ছিল মোশাররফ করিম-জুঁইয়ের বিবাহবার্ষিকীর দিন। এদিন সন্ধ্যায় বিবাহবার্ষিকী উপলক্ষে এই নাট্য দম্পতির সম্মানার্থে স্থানীয় একটি রেস্তোরাঁ একটি ছোট পার্টির আয়োজন করে। সেখানেই কেক কেটে মোশাররফ করিম-জুঁই ১৬ বছর পূর্ণের কেক কাটলেন।

শুধু তাই নয়, চিম্বল নামের ওই রেস্টুরেন্টের স্বত্বাধিকারী রনি ঘোষণা করলেন, ‘মোশাররফ করিম ভাই ও জুঁই ভাবির জন্য আমাদের রেস্টুরেন্ট আজীবন ফ্রি।’ রনি ভাবলেন, এবং মনে করতে পারলেন যে তাঁর বক্তব্যে হয়তো ভুল হয়ে গেছে। নিজের বক্তব্য সংশোধন করে নিয়ে বললেন, আজীবন নয়, আমাদের এই রেস্টুরেন্ট পাঁচ বছরের লিজ নেওয়া। তার মধ্যে এক বছর বাকি আছে। এই এক বছর ভাই-ভাবির জন্য আমাদের রেস্তোরাঁ একদম ফ্রি।’

এ সময় সবাই হাততালি দিয়ে ওঠেন। এই অনুষ্ঠানে অভিনয়শিল্পী ও পরিচালক স্ত্রীসহ শামীম জামানও উপস্থিত ছিলেন।

মোশাররফ করিম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘অদ্ভুত সুন্দর এই জায়গাটা। মেঘেদের সঙ্গে খুব দারুণ কাটছে সময়। মনে হচ্ছে কিছুদিন এখানেই থেকে যাই। একটা শীতল অনুভূতি শরীরে ছড়িয়ে পড়ছে। বলে বোঝানো যাবে না এই অনুভূতি। সাজেক আমার খুব পছন্দ হয়েছে। তবে পরিকল্পনা নিয়ে জায়গাটাকে অনেক সুন্দর করা যেত। এই যেমন রুইলুইপাড়া থেকে কংলাক পাহাড়কে কেবল কার দিয়ে সংযুক্ত করার পরিকল্পনা করা যেতে পারত।’

পাহাড়ে বিবাহবার্ষিকী পালন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আসলে ব্যস্ততার জন্য কোনো কিছুই তো উপভোগ করার উপায় নেই। একটা ছুটি মিলে গেল। বলা যায় বিবাহবার্ষিকী একটা উপলক্ষ, এই উপলক্ষকে কেন্দ্র করেই পাহাড়ে চলে আসা।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *