১ মাস ১০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করে ফেললেন এই ছোট্ট শিশু টি

৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের।তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে।

বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে।

ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না। আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের ৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন।

তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে। বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে। ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না।

আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের ৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন।তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে। বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে।

ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না। আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের ৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন।

তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে। বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে। ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না।

আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের ৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন।তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে। বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে।

ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না। আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের ৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন।তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে। বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে। ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।

তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না। আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।বগুড়া জেলা সদরের সান্তাহার রোডের গোদারপাড়া মাদরাসাতুল উলুমিশ শারইয়্যাহ-এর হেফজ বিভাগের ৯ বছর বয়সী ছাত্র মোহাম্মদ নূর আলম, মাত্র ৪০ দিনে পুরো কুরআন মুখস্থ করেছেন।তার বাড়ি বগুড়া সদর উপজেলার বড় কুমিরা গ্রামে। বাবা মুহাম্মাদ আতাউর রহমান ও মা আঁখি বেগমের ৩ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় নূর।মাদরাসার প্রশাসন বিভাগ জানায়, সাদিক নুর এতটাই মেধাবী যে প্রতিদিন ১৫ পৃষ্টা থেকে এক পারা পর্যন্ত সবক দিয়েছে সে। ফলে এবছর শাওয়াল মাসে মাদরাসার হিফয বিভাগে ভর্তি হয়ে বিস্ময়করভাবে মাত্র ৪০ দিনে পবিত্র কুরআনের হিফয সম্পন্ন করেছে।তার উস্তাদ হাফেজ রঈসুল হাসার শিহাড়ী বলেন, ছেলেটি অসম্ভব মেধাবী। এমন মেধাবী শিক্ষার্থী সহজে দেখা যায় না। আমার শিক্ষকতার জীবনে এরকম মেধাবী ছাত্র এটাই প্রথম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *