রোগ প্রতিরোধে জাদুর মতো কাজ করে যে সাত খাবার

করোনার আতঙ্কে রয়েছে বিশ্ববাসী। যা এখন মহামারি আকারে ধারণ করেছে। যাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, এই ভাইরাস তাদের খুব সহজেই আক্রমণ করতে পারে। তাই ছোঁয়াচে এই ভাইরাস থেকে বাঁচতে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো জরুরি।
স্বাস্থ্যকর খাবার ছাড়া শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর বিকল্প নেই। ভারতের বিখ্যাত আয়ুর্বেদিক পথ্য প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ‘চরক ফার্মা’র কয়েকজন বিশেষজ্ঞ গবেষক ও চিকিৎসকের রোগ প্রতিরোধকারী বেশ কিছু খাবারের কথা জানিয়েছেন। যে খাবারগুলো বেশ সহজলভ্যও। চলুন জেনে নেয়া যাক সেই খাবারগুলো সম্পর্কে-

মুগ ডাল

অনেকেই ডাল খেতে ভালোবাসেন। সেক্ষেত্রে মুগ ডাল খুবই উপকারী। এই ডাল খুব সহজেই হজম হয়ে যায়। প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ পুষ্টিতে ভরপুর এই শস্য দানাটি শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে দারুণ কার্যকরী।

সবুজ শাক

শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সবুজ শাক খুবই কার্যকরী। তাই পালংশাক, কারিপাতা, লাউশাক, কলমি শাক খেতে পারেন। আমাদের ক্যালসিয়াম ও আয়রনসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ উপাদানের জোগান দেয় সবুজ শাক। এগুলো মশলায় হালকা ঝলসে নিলে দারুণ উপাদেয় হতে পারে বলে জানাচ্ছেন ভেষজ বিশেষজ্ঞ গবেষক ও চিকিৎসকরা।

হলুদ

প্রাচীনকাল থেকেই হলুদ নানা রোগের প্রতিষেধক হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছে। হলুদ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। এর ব্যাপক ভেষজগুণ রয়েছে। সতর্কতা বাড়াতে নিয়মিত এক টুকরা কাঁচা হলুদ খেতে পারেন।

ডাল

প্রোটিনের দারুণ উৎস হচ্ছে ডাল। এটা এমন একটি উদ্ভিজ্জ প্রোটিন যা সবার জন্যই উপকারী। এছাড়া এতে নানা ধরনের পুষ্টি উপাদান থাকায় নিয়মিত ডাল খাওয়ার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। মসুর, মুগ, মাসকলাই, ছোলা ও খেসারির ডাল শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। এছাড়া এতে থাকা পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম এবং ফাইবার উচ্চ রক্তচাপ কমাতে ভূমিকা রাখে।

গোল মরিচ ও জিরা

গোল মরিচ ক্রনিক সর্দি-কাশি থেকেও রক্ষা করে। ছোট্ট এই কালো দানার অসীম গুণ। আর জিরা হজমে সাহায্য করে, অতিরিক্ত ওজন কমায় ও লিভার ভালো রাখে।

মৌসুমী ফল

কমলালেবু, পেঁপে, আঙুর, আনার, তরমুজ, জলপাই, আনারস ইত্যাদি ফল আমাদের হাতের নাগালেই থাকে। এর মধ্যে পেপে হজমে দারুণ কার্যকর। আর আনারসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ এবং সি, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম ও ফসফরাস। এসব উপাদান আমাদের দেহের পুষ্টির অভাব পূরণে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও আনারসে রয়েছে ব্রোমেলিন, ক্যালসিয়াম ও ম্যাংগানিজ।মনে রাখা জরুরি, যে কোনো রোগ দানা বাধার আগেই যেন আমাদের শরীর প্রতিরোধী হয়ে উঠতে পারে। তাই এসব ফল অবশ্যই খেতে হবে।

ভিটামিন সি

আমলকি, লেবু, কমলা, কাঁচা মরিচ, করলা এগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট বাড়ায়। তাই খাদ্য তালিকায় ভিটামিন সি আছে এমন খাবার অবশ্যই রাখুন।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *