মি’ন্নিকে নিয়ে যা বললেন ন’য়ন বন্ডের মা

রিফাত শরীফ হত‌্যা মামলার রায়ে খুশী হয়েছেন বন্দুকযুদ্ধে নিহত আসামি নয়ন বন্ডের মা সাহিদা বেগম। রায়ের প্রতিক্রিয়ায় সাহিদা বেগম বিচার ছাড়া তার ছেলের মৃত‌্যুর ঘটনায় ক্ষোভও প্রকাশ করেন।
মিন্নিসহ ছয় আসামির মৃত‌্যুদণ্ডের আদেশের খবর শুনে নয়ন বন্ডের র মা বলেন, আলহামদুল্লিাহ, আমি খুশি হয়েছি। এই রায় কার্যকর হলে আমি মিলাদ দেব। মিন্নির কারণে আমার ছেলের এমন পরিণতি হয়েছে। আমার ছেলে ভালো হয়ে গেছিল। মিন্নি রিফাতকে বিয়ে করার পর নয়ন ক্ষুব্ধ হয়। আমি মিন্নিকে কখনো ক্ষমা করবো না।

সাহিদা বেগম আরো বলেন, মিন্নির এমন বিচারে সবাই সচেতন হবে। যাতে করে নতুন করে মিন্নির মত কেউ জন্ম না নেয়। ওর কারণে কতগুলা পরিবার ধ্বংস হয়ে গেলো। আমার ছেলের পরিণতি হলো বিচার ছাড়া মৃত্যু। আমার ছেলে অন্যায় করলেও ন্যায় বিচারের দাবি রাখি আমরা। কিন্ত সে সুযোগ দেওয়া হয়নি, আমি আমার ছেলেকে নির্বিচারে হত্যার বিচার চাই।

২০১৯ সালের ২ জুলাই ভোরে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয় রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান আসামি ০০৭ বন্ড গ্রুপের প্রধান নয়ন বন্ড।

বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিসহ ছয়জনের ফাঁসির আদেশ দেন আদালত। একই মামলায় চারজনকে খালাস দেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন আদালত।

বুধবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আছাদুজ্জামান। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন, মো. রাকিবুল হাসান ওরফে রিফাত ফরাজী, আল কাইয়ুম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজোয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মো. হাসান ও আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি।

এছাড়া এ মামলায় চার আসামিকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন, মো. মুসা, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মো. সাগর ও কামরুল হাসান সায়মুন।

Author: Rijvi Ahmed

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *