করোনা: আইসিইউতে অক্সিজেন সাপোর্টে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে অক্সিজেন সাপোর্টে রাখা হয়েছে।এর আগে গত শুক্রবার আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় টুইটারে এক ভিডিও বার্তায় বরিস জনসন জানিয়েছিলেন যে, তার শরীরের তাপমাত্রা অনেক বেশি।

দ্য টাইমস জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার বাগদত্তা কেরি সাইমন্ডসের সঙ্গে হাসপাতালে এলে তাকে অক্সিজেন দেওয়া হয়।যদিও ডাউনিং স্ট্রিট জোর দিয়ে বলেছে, বরিস জনসনের অবস্থা গুরুতর নয়, চিকিৎসকের পরামর্শে নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষার অংশ হিসেবে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়।

চিকিৎকরা জানিয়েছেন, হাসপাতাল ছাড়ার আগে বরিস জনসনের অক্সিজেনের মাত্রা, রক্তের শ্বেত কণিকা গণনা এবং লিভার ও কিডনির কার্যকারিতা যাচাই করতে বেশ কয়েকটি পরীক্ষা করা হবে।

হৃদপিণ্ডের অবস্থা যাচাইয়ের জন্য বরিস জনসনকে ইলেক্ট্রোকার্ডিওগ্রামও করতে হতে পারে বলেও জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।ডা. সারা জার্ভিস বিবিসিকে বলেন, যদি দেখা যায় প্রধানমন্ত্রী শ্বাসকষ্টে ভুগছেন তবে তার বুকের এক্স-রে ও ফুসফুস স্ক্যান করাতে হবে।তিনি আরও বলেন, ভাইরাস সংক্রমণকারী প্রায় ৮০ শতাংশ লোক কেবল হালকা লক্ষণে ভুগছেন। বাকি ২০ শতাংশ মাঝারি থেকে গুরুতর অসুস্থতায় ভোগেন।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন এখনও সরকার প্রধানের দায়িত্ব পালন করে চলেছেন, এতে বোঝা যায় তিনি সম্ভবত মাঝারি অসুস্থতায় ভুগছেন, যোগ করেন ডা. জার্ভিস।ইউনিভার্সিটি অব এক্সেটর মেডিকেল স্কুলের সিনিয়র ক্লিনিকাল প্রভাষক ড. ভরত পঞ্চনিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রীর চিকিৎসক খুব সতর্ক থাকবেন, কারণ নিউমোনিয়া খুব দ্রুত আক্রান্ত করতে পারে।

যদি কোন রোগী নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয় তবে তার অবস্থা খুব দ্রুত খারাপের দিকে যেতে পারে। তাই শ্বাসকষ্টের প্রথম লক্ষণগুলির প্রাথমিক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি হওয়া জরুরি, বলেন ডা. ভরত পঞ্চনিয়া।মাঝারি বা গুরুত উপসর্গ দেখা গেলে বা শ্বাসকষ্ট হতে থাকলে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে দায়িত্ব চালিয়ে যাওয়া খুব কঠিন হবে বলে জানান ডা. জারভিস।

Author: admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *